Saturday, 17 August, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




অবশেষে ক্ষমা চাইলেন সেই ম্যাজিস্ট্রেট

নূর মোহাম্মদ, কিশোরগঞ্জ: অবশেষে কিশোরগঞ্জে এসে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেলে কলেজ ও হাসপাতলের ডাক্তারের কাছে ক্ষমা চাইলেন মৌলবীবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুনজিৎ কুমার চন্দ।

চলন্ত ট্রেনে ধূমপানে বাধা দেয়ায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজের এক ডাক্তারকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে ওই ম্যাজিস্ট্রেটের বিচার দাবিতে গত কয়েক দিন ধরে কিশোরগঞ্জে কর্মসূচি পালন করছিল রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ, কিশোরগঞ্জ ২৫০ জেনারেল হাসপতালসহ বিভিন্ন সংগঠন।

শনিবার সকালে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষের কক্ষে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. আ. ন. ম নওশাদ খান, জেলা বিএমএ’র সভাপতি ডা. মাহবুব ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক ডা. আব্দুল ওয়াহাব বাদল, সিভিল সার্জন ডা. মো. হবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক পিপিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুনজিৎ কুমার চন্দ তার আচরণের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন এবং রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজের ডা. রাফিউল সিরাজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে ক্ষমা চান।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ হাসপতালের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. আ. ন. ম নওশাদ খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের ডাক্তারকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় আমরা আন্দোলন করছিলাম। এ পরিস্থিতিতে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক অভিযুক্ত ম্যাজিস্ট্রেটকে সঙ্গে নিয়ে মেডিকেলে আসেন। দীর্ঘ সময় এ নিয়ে কথা হয়। ওই ম্যাজিস্ট্রেট নিজের ভুল বুঝতে পেরে লাঞ্ছনার শিকার ডাক্তারের কাছে ক্ষমা চান। সবার কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন। তাই সার্বিক দিক বিবেচনা করে বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২১ জুন কিশোরগঞ্জ থেকে জয়ন্তিকা ট্রেনে করে সিলেট যাচ্ছিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. রফিউল সিরাজ। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুনজিৎ কুমার চন্দ ট্রেনের ভেতর ধূমপান করলে প্রতিবাদ করেন সিরাজ। পরের স্টেশনে ম্যাজিস্ট্রেট পুলিশ ডেকে ট্রেন থেকে টেনে-হিঁচড়ে নামিয়ে ডা. সিরাজকে মারধর করান। এ ঘটনায় জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করা হলেও কোনো ব্যবস্থ নেয়া হয়নি।

ডা. রফিউল সিরাজ বলেন, ২১ জুন বিকেল ৫টায় মনতলা স্টেশনে ট্রেন থামতেই জ্বলন্ত সিগারেট নিয়ে ট্রেনে ওঠে ফুঁকতে থাকেন এক ব্যক্তি। প্রচণ্ড গরমের মধ্যে সিগারেটের ধোঁয়া অসহনীয় লাগছিল। একপর্যায়ে বিরক্ত হয়ে ধূমপান না করার জন্য তাকে অনুরোধ করলাম। তিনি তো কথা শুনলেনই না বরং উদ্যত হয়ে আমাদের বললেন, ‘তোদের বাড়ি কই, আমারে চিনস? দাঁড়া সামনের স্টেশনে তোদের সব কয়ডারে বানামু।’

ডা. রফিউল সিরাজ আরও বলেন, তারপর যা হলো তার সঙ্গে সেই দৃশ্যগুলো এখনও ভুলতে পারছি না। ট্রেন শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশনে থামলে হঠাৎ ওই লোকটার ডাকে ২০-২৫ জন ট্রেনে উঠে আমাদের কলার ধরে টেনে-হিঁচড়ে নামিয়ে মারধর করে। এ সময় আমার কামরার অনেকেই পালিয়ে যায়। আমার সঙ্গে যারা ছিল তাদের ওই ম্যাজিস্ট্রেটের পায়ে ধরায়। আমি তার পা ধরতে রাজি না হওয়ায় আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। নিজেকে মহামান্য রাষ্ট্রপতির প্রতিষ্ঠানের একজন ডাক্তার বলে পরিচয় দেয়ার পরও ওই ম্যাজিস্ট্রেট তাচ্ছিল্যের সঙ্গে বলতে লাগলেন, কিসের মহামান্য? ওইখানে টুটুল নামে পুলিশের এক এসআই আমাকে জেলে ঢোকানো এবং ক্রসফায়ারে হত্যার হুমকি দেয়। সেই সঙ্গে আমাকে পা ধরতে বাধ্য করেন ম্যাজিস্ট্রেট।

 

Developed by :