Sunday, 26 June, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজার পৌর নির্বাচনে কার ভোট কতো

এ বিজয় ন্যায়ের পক্ষের ও অন্যায়ের প্রতিবাদের : নবনির্বাচিত মেয়র ফারুকুল হক

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম: বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচনে বাজিমাত করেছেন মৃত্যুঞ্জয়ী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জিএস ফারুকুল হক। গতকাল বুধবার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘প্রতিবাদী’ মেয়র প্রার্থী নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বির চেয়ে ১৭৮২ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হন। সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স হলে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন। তিনি জানান, নির্বাচনে ২৭ হাজার ৭৯০ ভোটের মধ্যে ৯টি ওয়ার্ডের নির্ধারিত ১০টি কেন্দ্রে মোট কাস্ট হয়েছে ১৪ হাজার ১১ ভোট এবং বাতিলকৃত ভোটের সংখ্যা ২৫।

প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ ’৯৪ এর জিএস বিজয়ী ফারুকুল হক (চামচ) পেয়েছেন ৪ হাজার ১০০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুস সবুর (মোবাইল) পেয়েছেন ২৩শ’ ১৮ ভোট। তৃতীয় হয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সদ্য সাবেক মেয়র মো. আব্দুস শুকুর। তিনি পেয়েছেন ২ হাজার ২৭০ ভোট। নৌকা প্রতীকের এ প্রার্থী নিজের কেন্দ্রসহ পৌরসভার সবক’টি কেন্দ্রে পরাজয় বরণ করেন।

একইভাবে, স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেক পৌর প্রশাসক মো. তফজ্জুল হোসেন (জগ) পেয়েছেন ১ হাজার ৪শ’ ৯৯ ভোট, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আহবাব হোসেন সাজু (কম্পিউটার) ১ হাজার ৪শ’ ৬৩ ভোট, প্রভাষক আব্দুস সামাদ আজাদ (হ্যাঙ্গার) ১ হাজার ১শ’ ৬৪ ভোট, আওয়ামী লীগের আরেক বিদ্রোহী আব্দুল কুদ্দুছ টিটু (হেলমেট) ৬৭১ ভোট, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির (কাস্তে) এডভোকেট আবুল কাশেম ১৭৩ ভোট এবং জাতীয় পার্টির (লাঙ্গল) মো. সুনাম উদ্দিন পেয়েছেন ১৩৮ ভোট।

বক্তব্য রাখছেন নবনির্বাচিত মেয়র জিএস ফারুকুল হক

রাতে পৌরশহরের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে নবনির্বাচিত পৌর মেয়র জিএস ফারুকুল হক গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, ঝড়-বৃষ্টি না হলে আমি আরো বেশি ভোটের ব্যবধানে জয় করতে পারতাম। নির্বাচনে আমি বিজয়ী হইনি, হয়েছে ন্যায়ের পক্ষের ও অন্যায়ের প্রতিবাদের বিজয়। তিনি বলেন, আমার নিজস্ব কোন শক্তি নেই, বিয়ানীবাজার তথা পৌরবাসী সবাই ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় আমি শক্তিশালী হয়েছি। তিনি একটি স্বচ্ছ ও সুন্দর নির্বাচন উপহার দেওয়ায় ভোটের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানান। বিজয়ী মেয়র দেশ-বিদেশ থেকে যারা সাহায্য সহযোগিতা করেছেন এবং পরিবর্তনের পক্ষে রায় প্রদান করায় ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি জনরায়ের মর্যাদা রক্ষায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। পাশাপাশি পৌরসভার সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন নবনির্বাচিত মেয়র জিএস ফারুকুল হক।

এদিকে, বিয়ানীবাজার পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, ১নং ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত হাফিজ এমাদ উদ্দিন (ব্লাকবোর্ড), ২নং ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত ছয়ফুল আলম ঝুনু (ডালিম), ৩নং ওয়ার্ডে আকবর হোসেন লাভলু (টেবিল ল্যাম্প), ৪নং ওয়ার্ডে আবুল কাশেম (স্ক্রু ড্রাইভার), ৫নং ওয়ার্ডে সাইফুল ইসলাম (ডালিম), ৬নং ওয়ার্ডে এহসানুল হক (পানির বোতল), ৭নং ওয়ার্ডে মিছবাহ উদ্দিন (উটপাখি), ৮নং ওয়ার্ডে এনাম উদ্দিন (পাঞ্জাবি) ও ৯নং ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত আব্দুর রহমান আফজল (টেবিল ল্যাম্প)।

জানা যায়, গতকাল বুধবার বৈরি আবহাওয়ার মধ্যে অনেকটা উৎসবমুখর পরিবেশে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইভিএমে একটানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে কোনধরণের সংঘাত-সংঘর্ষ কিংবা অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। তবে, ইভিএমে ফিঙ্গার না মিলায় সকাল ১০ টা পর্যন্ত প্রায় প্রত্যেক কেন্দ্রে ১০-১২ ভাগ ভোট কাস্ট হওয়ার খবর পাওয়া যায়। কিন্তু সময় বাড়ার সাথে সাথে অভিযোগের ভিত্তিতে ইভিএম’র কারিগরি দল তাৎক্ষনিক কাজ করে এ সমস্যা কিছুটা দূর করেন। শেষ পর্যন্ত মোট ভোটের ৫০ ভাগের কিছুটা ওপরে কাস্ট হয়।

বিয়ানীবাজার পৌরসভার এ নির্বাচনে মেয়র পদে ১০ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৮ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

 


সর্বশেষ সংবাদ

Developed by :