Friday, 21 January, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




তৃণমূলের নেতাকর্মী উজ্জীবিত হলে নৌকার বিজয় সম্ভব : নাহিদ এমপি, উন্নয়ন বরাদ্দ বণ্টনে তারা সম্পৃক্ত

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রত্যেক ইউনিয়নে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। পাকা রাস্তা, ব্রিজ-কালভার্ট, স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসার একাডেমিক ভবন নির্মাণসহ সাধারণ মানুষের জন্য কল্যাণকর সব কাজ করা হয়েছে। যা অতীতে কোন সংসদ সদস্য কল্পনাও করতে পারেননি।

তিনি বলেন, তৃণমূলের নেতাকর্মীরা হলেন আওয়ামী লীগের প্রাণ। তারা উজ্জীবিত এবং ঐক্যবদ্ধ হলে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রত্যেক ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করা সম্ভব হবে। তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে পরামর্শ করে উন্নয়ন বরাদ্দ বণ্টনের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা হবে বলেও মন্তব্য করেন।

শনিবার বেলা দেড়টায় স্থানীয় একটি কমিউনিটি সেন্টারে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। এতে দলের প্রায় ৩ শতাধিক দায়িত্বশীল নেতা উপস্থিত ছিলেন।

বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খানের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো. নাসির উদ্দিন খান, সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদ উদ্দিন আহমদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কবির উদ্দিন আহমদ, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ সাকির আহমদ শাহীন, কাযনির্বাহী কমিটির সদস্য হাজি আব্দুল হাসিব মনিয়া ও এডভোকেট আফসর আহমদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নুরুল ইসলাম নাহিদ আরো বলেন, আওয়ামী লীগে সমস্যা থাকবে, আলোচনার মাধ্যমে তা দূর হবে। তবে, দলকে কোন অবস্থাতেই ক্ষতিগ্রস্ত করা যাবে না। তিনি ইউনিয়নের দায়িত্বশীল নেতাদের মন থেকে সকল দুঃখ মুছে ফেলে আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা মেনে রাজনীতি করলে সামনে অগ্রসর হওয়া যায়। নেতৃত্ব নিয়ে মতানৈক্য থাকতে পারে, তা আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তি করতে হবে। তিনি বলেন, বিয়ানীবাজারে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী। আগামী ইউপি নির্বাচনে এর প্রমাণ দিতে হবে। এজন্য পদ নিয়ে ঘরে বসে থাকলে হবে না, কাজের মাধ্যমে দলীয় নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতে হবে।

বক্তব্য রাখছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান (বা থেকে)

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের মর্যাদা কোন অংশেই কম নয় উল্লেখ করে সাবেক ছাত্রনেতা এডভোকেট মো. নাসির উদ্দিন খান বলেন, ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা সভাপতির স্বাক্ষর বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাদেরকে সে সম্মান দিয়েছেন। তিনি বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তের কারণে দায়িত্বশীল একজনকে একাধিক পদ দেয়া হয়নি। এতে করে কমিটিতে নতুন মুখের সংখ্যা বেড়েছে। তবে, ইউনিয়নের দায়িত্বশীলদের সাথে আলোচনা করে উপজেলা কমিটি করলে আরো সুন্দর হতো এবং বিতর্ক থাকত না। তিনি আগামীতে সর্বক্ষেত্রে তৃণমূল নেতাদের মূল্যায়ন করার আহ্বান জানান। জেলা সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির খান আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সকল মতানৈক্য ভুলে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়ালের পরিচালনায় বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এডভোকেট মোহাম্মদ আব্বাছ উদ্দিন, জেলার কাযনির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক ছাত্রনেতা মো. আব্দুল বারী ও মোহাম্মদ জাকির হোসেন।

মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আহমদ হোসেন বাবুল, হারুন হেলাল চৌধুরী, আলহাজ শামছ উদ্দিন, আলহাজ নাজিম উদ্দিন, ছালেহ আহমদ বাবুল, আব্দুল খালিক ও আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুস শুকুর ও আবুল কাশেম পল্লব, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ জামাল হোসেন, হুমায়ুন কবির ও মাসুদ হোসেন খান।

বর্ধিত সভায় পৌরসভা ও প্রত্যেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সাংগঠনিক কার্যক্রম তুলে ধরেন এবং নবগঠিত উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি এবং দলীয় উন্নয়ন বণ্টন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এছাড়া, বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন উপজেলা মহিলা লীগ, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগ, উপজেলা কৃষক লীগ এবং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দলীয় কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

 




 

Developed by :