Thursday, 21 October, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ৬ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




ঐতিহাসিক নানকার কৃষক বিদ্রোহ দিবস বুধবার

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম: আগামীকাল বুধবার ঐতিহাসিক নানকার কৃষক বিদ্রোহের ৭৩ তম দিবস। উর্দূ শব্দ নান এর বাংলা প্রতিশব্দ ‘রুটি’। আর রুটির বিনিময়ে যারা কাজ করতেন তাদেরকে বলা হত নানকার। বিয়ানীবাজারের সানেশ্বর ও উলুউরি গ্রামের মধ্যবর্তী সুনাই নদীর তীরে ১৯৪৯ সালের ১৮ আগস্ট ব্রিটিশ আমলের ঘৃণ্য নানকার প্রথা ও জমিদারি ব্যবস্থার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে গিয়ে মোট শহীদ হন ৬ জন।

পাকিস্থান সরকারের ইপিআর এর গুলিতে কৃষকের বুকের তাজা রক্তে রক্তাক্ত হয় সবুজ মাঠ। ঐদিন প্রাণ হারান, ব্রজনাথ দাস (৫০), কটুমনি দাস (৪৭), প্রসন্ন কুমার দাস (৫০), পবিত্র কুমার দাস (৪৫) ও অমূল্য কুমার দাস (১৭)। তার কিছুদিন আগে শহীদ হন রজনী দাস।

এরপর রক্তাক্ত আন্দোলনের মুখে ১৯৫০ সালে তৎকালিন সরকার জমিদারী প্রথা বাতিল ও নানকার প্রথা রদ করে কৃষকদের জমির মালিকানার স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়। বাঙালি জাতির সংগ্রামের ইতিহাসে বিশেষ করে অধিকারহীন মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য যে সকল গৌরবম-িত আন্দোলন-বিদ্রোহ সংগঠিত হয়েছিল তার মধ্যে নানকার বিদ্রোহ অন্যতম।
এদিকে, নানকার কৃষক শহীদদের স্মরণে ২০০৮ সালে সানেশ্বরে সুনাই নদীর তীরে স্থাপন করা হয় ‘নানকার কৃষক শহীদ স্মৃতিসৌধ।’ তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি স্মৃতিসৌধের উদ্বোধন করেন। এরপর থেকে প্রতিবছর আনুষ্ঠানিক ভাবে দিবসটি উদযাপনের লক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। বিয়ানীবাজার সাংস্কৃতিক কমান্ড, উলুউরী নানকার স্মৃতি পাঠাগার ও সানেশ্বর নানকার স্মৃতি সংসদ এর আয়োজন করে।

একইভাবে আগামীকাল বুধবার সকাল ১০টায় ‘নানকার কৃষক শহীদ স্মৃতিসৌধে’ পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে এ কর্মসূচিতে উপস্থিত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিয়ানীবাজার সাংস্কৃতিক কমান্ডের সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ ও বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ছাদেক আহমদ আজাদ।

 




 

Developed by :