Wednesday, 1 December, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




ছাত্রলীগ-ছাত্রদল উভয় সংগঠনেরই পদ হারালেন রনি

বার্তা ডেস্ক: নানা আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়ে অবশেষে ছাত্রলীগের পদ হারালেন ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা পৌর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ রায়হান রনি। একইসঙ্গে ছাত্রদল থেকেও রনিকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

শনিবার ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তামজিদুল রশিদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. ফাহিম আহামেদ স্বাক্ষতির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রনিকে অব্যাহতি দেয়ার কথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়, আলফাডাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রায়হান রনিকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। সংগঠনের শৃঙ্খলা পরিপন্থী কার্যকলাপের কারণে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এদিকে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সৈয়দ আদনান হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হাসান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংগঠনের শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও নীতি–আদর্শ লঙ্ঘনের দায়ে রায়হান রনিকে ছাত্রদল আলফাডাঙ্গা পৌরসভা কমিটির প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক পদ থেকে বহিষ্কার করা হলো।

এর আগে শনিবার বেলা ১১টার দিকে আলফাডাঙ্গা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন রায়হান রনি। সেখানে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ছাত্রদলের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই। ছাত্রদলের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি মিথ্যা এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তাকে হেয় করার জন্য এগুলো প্রচার করা হচ্ছে।

লিখিত বক্তব্যে রায়হান আরও বলেন, অভিযোগ প্রমাণের আগে তাকে ছাত্রদল নেতা বলে যে সংবাদ প্রচার করা হচ্ছে, সেটা দুঃখজনক। তার সঙ্গে অন্যায় করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

ছাত্রদল ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় ছয় মাস আগে গত ২৩ জানুয়ারি জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সৈয়দ আদনান হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হাসান ২১ সদস্যের আলফাডাঙ্গা পৌর ছাত্রদলের একটি আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেন। ওই কমিটিতে একজন আহ্বায়ক, নয়জন যুগ্ম আহ্বায়ক, একজন সদস্যসচিব এবং বাকি সবাই সদস্য। ঘোষিত কমিটির ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে রয়েছে রায়হান রনির নাম।

অপরদিকে ১২ জুন আলফাডাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম ঘোষণা করে আংশিক কমিটি অনুমোদন করা হয়। ঘোষিত ওই পৌর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে রয়েছে মোহাম্মদ রায়হান রনির নাম।

স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের অভিযোগ ছাত্রদলের রায়হান রনি ও ছাত্রলীগের মোহাম্মদ রায়হান রনি একই ব্যক্তি।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ রায়হান রনি এই প্রতিবেদককে বলেন, ছাত্রদলের রায়হান রনি আর তিনি এক ব্যাক্তি না। তিনি সব সময় ছাত্রলীগ করেছেন, ছাত্রদল তিনি করেননি। ছাত্রদলের রায়হান রনিকে তিনি চেনেনও না।

ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানজিদুল রশীদ রিয়ান এই প্রতিবেদককে জানান, তার জানা মতে ছাত্রদলের রায়হান রনি আর ছাত্রলীগের রায়হান রনি এক ব্যক্তি না। তারপরও কেউ যদি প্রমাণ দিতে পারে এই দুই রনি একজনই তাহলে রায়হান রনির বিরুদ্ধে গঠনতন্ত্র মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ছাত্রলীগে কোনো বিতর্কিত লোকের স্থান হবে না এমন কি অন্য কোনো রাজনৈতিক সংগঠন করে ছাত্রলীগে আসা যাবে না।

এ বিষয়ে আলফাডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকরাম হোসেন বলেন, জেলা থেকে কখন কী কমিটি ঘোষণা করে, আমাদের থেকে মতামত বা পরামর্শও নেয় না। ছাত্রলীগের এ কমিটি ঘোষণার ক্ষেত্রেও আমার কাছ থেকে কোনো পরামর্শ নেয়া হয়নি। এখন শুনছি ছাত্রদলের এক নেতা কমিটির বড় পদ পেয়েছেন। আমি বলব যেহেতু অভিযোগ উঠেছে, সেহেতু ছাত্রলীগের নেতাদের উচিত হবে অভিযোগের তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

 




 

Developed by :