Wednesday, 4 August, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ২০ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




দুই পায়ে মৃত্যুর কারণ ও দায়ীদের নাম লিখে গেলেন গৃহবধূ

বার্তা ডেস্ক: বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজে’লার রামানন্দেরআক গ্রামে স্বামী, ভাসুর ও জা’ এর নি’র্যা’তন সইতে না পেরে টুম্পা অধিকারী নামে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহ’ত্যা করেছে বলে অ’ভিযোগ উঠেছে।

আত্মহ’ত্যার আগে টুম্পা তার দুই পায়ে নিজের মৃ’ত্যুর কারণ ও দায়ীদের নাম এবং মৃ’ত্যুর পর মায়ের চিতার কাছে তার ম’রদেহ সৎকারের অনুরোধ করে বলে জানায় পু’লিশ। গত মঙ্গলবার রাতে বিষপান করে আত্মহ’ত্যা করে সে। বুধবার বিকেলে টুম্পার ম’রদেহ উ’দ্ধার করে ম’র্গে প্রেরণ করে পু’লিশ।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ম’র্গে ময়নাত’দন্ত শেষে তার ম’রদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
এ ঘটনায় বুধবার রাতে টুম্পার বোন কল্পনা অধিকারী বাদী হয়ে টুম্পার স্বামী স্বপন মন্ডল, ভাসুর বিবেক মন্ডল ও জা রীতা রানী মন্ডলকে আ’সামি করে আগৈলঝাড়া থা’নায় একটি মা’মলা দায়ের করেন। পু’লিশ ওই রাতেই অ’ভিযু’ক্ত স্বামী স্বপন মন্ডলকে গ্রে’প্তার করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বপনকে আ’দালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

টুম্পার স্বামী গ্রে’প্তারকৃত স্বপন মন্ডল মাদারীপুর জে’লার ডাসার থা’নার নবগ্রাম এলাকার প্রয়াত বঙ্কিম মন্ডলের ছে’লে।

আগৈলঝাড়া থা’নার ওসি গো’লাম ছরোয়ার জানান, ১১ বছর আগে পারিবারিকভাবে টুম্পার সাথে স্বপনের বিয়ে হয়। শ্বশুর বাড়ির লোকজনের অ’ত্যাচার সহ্য করতে না পেরে টুম্পা তার স্বামীকে নিয়ে আগৈলঝাড়া উপজে’লার রামানন্দেরআক গ্রামে বাবার বাড়িতে থাকতো। টুম্পা ও স্বপন শ্রমিক হিসেবে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতো। তাদের ৮ বছর বয়সের একটি ছে’লে সন্তান রয়েছে।

জমিজমাসহ পারিবারিক নানা বিষয়ে সুরহা করতে গত মঙ্গলবার সকালে টুম্পা তার শ্বশুর বাড়ি মাদারীপুরের নবগ্রাম এলাকায় যায়। এসময় ভাসুর বিবেক মন্ডল ও জা রীতা রানী মন্ডল তাকে অশ্রাব্য ভাষায় অ’পমান অ’পদস্ত করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এসময় স্বামী স্বপন মন্ডল এর প্রতিবাদ করেনি। আগে সেও স্ত্রী’র উপর নি’র্যা’তন করতো বলে অ’ভিযোগ রয়েছে। এ কারণে টুম্পা ওই রাতেই পিত্রালয়ে ফিরে বিষপানে আত্মহ’ত্যা করে বলে অ’ভিযোগে উল্লেখ রয়েছে। মা’মলার এক নম্বর আ’সামি গ্রে’প্তার করা হয়েছে। অ’পর আ’সামিদের গ্রে’প্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন ওসি।

এদিকে, মা’মলা ত’দন্ত কর্মক’র্তা আগৈলঝাড়া থা’নার এসআই মো. মিশু জানান, টুম্পার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করার সময় হাঁটুর নিচের অংশে পায়ে কলম দিয়ে তার মৃ’ত্যুর কারণ ও মৃ’ত্যুর জন্য দায়ী স্বামী স্বপন মন্ডল, ভাসুর বিবেক মন্ডল ও বিবেকের স্ত্রী’ রীতা মন্ডলের নাম লিখে রেখে যায়। এছাড়াও তার মায়ের শ্মশানের কাছে তার ম’রদেহ সৎকার করার আকুতির কথা লেখে গেছেন।

 

Developed by :