Monday, 14 June, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজারে ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস পালিত

‘শহীদ মনু মিয়ার নামে সরকারি প্রতিষ্ঠান কিংবা সড়কের নামকরণের দাবি’

নাহিদুর রহমান: বিয়ানীবাজারে যথাযথ মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ জুন তথা শহীদ মনু মিয়া দিবস পালিত হয়েছে। সোমবার বিয়ানীবাজার পৌর এলাকার নয়াগ্রামে স্থাপিত শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি সৌধে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে বাদ জোহর স্থানীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া মাহফিল। এতে শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, দুপুরে শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদের সহ সভাপতি শিক্ষাবিদ মজির উদ্দিন আনসারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খালেদ জাফরীর পরিচালনায় ঐতিহাসিক ৬ দফা নিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান, বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালিক ফারুক, বিয়ানীবাজার সাংস্কৃতিক কমান্ডের সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ, বিয়ানীবাজার জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আহমেদ ফয়সাল প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, মনু মিয়ার রক্ত বৃথা যায়নি। তাঁর আত্মত্যাগ ৬ দফা আন্দোলনকে বেগবান করে এবং বাঙালি জাতি স্বাধীনতার দিকে অগ্রসর হয়। একপর্যায়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করি। তাঁরা আরো বলেন, শহীদ মনু মিয়া বিয়ানীবাজারের অহংকার হলেও তাঁকে আমরা যথাযথ সম্মান দিতে পারিনি। বক্তারা অবিলম্বে শহীদ মনু মিয়ার আত্মত্যাগকে মহিমান্বিত করতে তাঁর নামে বিয়ানীবাজার পৌরশহরে সরকারি প্রতিষ্ঠান কিংবা সড়কের নামকরণ করার জোর দাবি জানান।

পরে স্মৃতি সৌধে শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদ, বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ, বিয়ানীবাজার সাংস্কৃতিক কমান্ড, নয়াগ্রাম নবীন সংঘসহ বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আহমদ হোসেন বাবুল ও আশরাফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমদ, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক আবুল হোসেন খসরু, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক আলমগীর হোসেন রুনু, শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি পরিষদের সদস্য লেখক ফয়জুর রহমান, শাহাব উদ্দিন মাওলা, লেখক আজিজুস সামাদ শামীম, কবি ওয়ালী মাহমুদ, অধ্যাপক প্রিয়তোষ চক্রবর্তী, অধ্যাপক ফয়ছল আহমদ, আরবাব হোসেন খান ও সাংবাদিক এম হাসানুল হক উজ্জ্বল, বিয়ানীবাজার মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি আব্দুল বাসিত টিপু প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বিয়ানীবাজারের এ কৃতিসন্তান ১৯৬৬ সালের ওইদিনে বাঙালির মুক্তির সনদ ৬ দফা আন্দোলনের সময় রাজধানীতে হরতাল চলাকালে পুলিশের গুলিতে প্রথম শহীদ হন। তৎকালীন পাকিস্তান সরকার তার লাশ গুম করে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু সরকার তাঁর স্মরণে রাজধানীর নাখালপাড়ায় ‘শহীদ মনু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়’ প্রতিষ্ঠা করে। কিন্তু ২০১৭ সালের আগপর্যন্ত মনু মিয়ার জন্মভূমি বিয়ানীবাজারে তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে কোন প্রতিষ্ঠান কিংবা সড়কের আনুষ্ঠানিক নামকরণ করা হয়নি।

তবে, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের উদ্যোগে ২০১৭ সালে মনু মিয়ার আত্মত্যাগকে স্মরণে রাখতে তাঁর নয়াগ্রামের বাস্তুভিটায় সাড়ে ৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ‘শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি সৌধ’ নির্মাণ করা হয়। এরপর থেকে প্রতিবছর ৭ জুন এলে শহীদ মনু মিয়া স্মৃতি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণসহ নানা কর্মসূচি পালন করা হয়।

 

Developed by :