Monday, 26 July, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ১১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |




‘মৃত্যুকে শিয়রের পাশেই দেখেছি অপেক্ষমান’

সিলেট জেলা প্রেসক্লাব এর সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম চৌধুরী নবেল। করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। আজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এ তিনি একটি পোস্ট দিয়েছেন। পাঠকদের জন্য তাঁর লেখাটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

শাহ দিদার আলম নবেল

পরম করুনাময় মহান আল্লাহর অশেষ রহমতে আজ কোভিডকে সাথে নিয়ে ১৭ দিন পার করতে যাচ্ছি। হাসপাতালের অফিসিয়াল ট্রিটমেন্ট শেষ। দ্বিতীয়বারের মতো নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

চিকিৎসকদের পরামর্শে আজ বাসায় ফিরছি। এই যাত্রায় হয়তো আর ফেরা-ই হতো না। কিন্তু মা-বাবা, স্ত্রী-সন্তান, পরিবার-পরিজন আর অগুনতি শুভাকাঙ্ক্ষীর চোখের নিরব জলে দয়াময় আমাকে নতুন জীবন দিয়েছেন। এই জীবনে আমার আর ব্যক্তিগত চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। মৃত্যুকে তো শিয়রের পাশেই দেখেছি অপেক্ষমান। এখনও শ্বাস প্রশ্বাস নিতে পারছি, বেঁচে আছি-এটা আমার বোনাস জীবন।

তাই যতোদিন বেঁচে থাকবো জীবনটা কাটিয়ে দিতে চাই মানুষকে ভালোবেসে, সৃষ্টিকর্তাকে ভালোবেসে। পরপারের পুঁজি সংগ্রহে।

হাসপাতালের সিটে বিষন্ন সাংবাদিক শাহ দিদার আলম নোবেল

আমার অসুস্থতার খবর পেয়ে যারা নিজেদের সুরক্ষার কথা না ভেবে ঝুঁকি নিয়ে দেখতে এসেছেন, পাশে দাঁড়িয়েছেন, সাহস যুগিয়েছেন- সবার প্রতি অনিঃশেষ কৃতজ্ঞতা। বিশেষ করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায়, বিএনএ সেক্রেটারি ইসরাইল আলী সাদেকসহ হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সিং কর্মকর্তাদের কাছ থেকে যে সহযোগিতা পেয়েছি তা কোনদিনও ভুলার নয়। আল্লাহ এই মানবসেবকদের মংগল করুন।

বিঃদ্রঃ রুটিন ট্রিটমেন্ট শেষে হাসপাতাল ছাড়লেও এখনো আমার শারীরিক ও মানসিক অবস্থা খুবই খারাপ। এই ১৭ দিনের প্রথম ৭ দিনেই ভাইরাস আমার ফুসফুসের ৫৫% এর উপরে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। বাকি ১০ দিনের খবর জানা নেই। এছাড়া হাই এন্টিবায়োটিক গ্রহনের কারনে চোখের দৃষ্টিতে সমস্যা হচ্ছে। মাঝে মধ্যে বুকে ব্যথা হয়, হাল্কা শ্বাসকষ্টও দেখা দেয়। চিকিৎসকরা বলছেন এই দূর্বলতা কাটিয়ে উঠতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। তাই আগামী কয়েকদিন হয়তো আপনাদের সাথে ফোনে কথা হবে না। যোগাযোগ কম হবে। তারপরও আপনাদের দোয়া থেকে এই অধমের নামটা বাদ দিবেন না। যতোদিন বেঁচে থাকি আপনাদের ভালোবাসায়, আপনাদের একজন হয়েই থাকতে চাই।

 




 

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by :