Friday, 30 October, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে প্রাণ গেল মুয়াজ্জিনের

সিলেট: সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় পড়ে আছেন এক বৃদ্ধ। সাদা পায়জামা পরনে, গা খালি। রোববার দুপুর দেড় টার দিকে অনেকক্ষণ পড়েছিলেন তিনি। অসহায় অবস্থায় আশপাশের লোকজনকে ডাকলেও কেউ সাড়া দেয় নি। করোনা সন্দেহে তার সাহায্যে এগিয়ে আসেনি কেউ। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় দীর্ঘক্ষণ পড়ে থেকে রোববার দুপুরে মারা যান তিনি।

রোববার জোহরের আযানের পর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে তিনি রাস্তায় পড়ে যান।

তিনি আর কেউ নন, তিনি হচ্ছেন সিভিল সার্জন কার্যালয় মসজিদের মুয়াজ্জিন মাওলানা সুলতান আহমদ (৫০)।প্রায় ঘণ্টা খানেক পর সিভিল সার্জন অফিসের নিরাপত্তাকর্মী সুশীল মোহন্ত কয়েকজনের সহায়তায় ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সিএনজি অটোরিকশায় করে হাসপাতালে নেওয়া হলেও ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে। ওসমানী হাসপাতালে নেওয়ার কিছুক্ষনের মধ্যে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অনেকক্ষণ সময় মাওলানা সুলতান কার্যালয়ের সামনে পড়ে থাকলেও কেউ এগিয়ে আসেনি।করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে বিদেশ গমন্নেছুদের কেউও সহায়তা করতে যাননি। সিভিল সার্জন অফিসের নিরাপত্তাকর্মী সুশীল মোহন্ত জানান, প্রায় ২০-২২ বছর ধরে মাওলানা সুলতান মসজিদের মুয়াজ্জিন হিসেবে রয়েছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ রোগে ভুগছিলেন বলে জানিয়েছেন নিরাপত্তাকর্মী সুশীল মোহন্ত।

সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল জানান, মাওলানা সুলতান হঠাৎ মাথা ঘুরে পড়ে গিয়েছিলেন। এই খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে অফিসের লোকজন উনাকে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন। ওসমানীতে নেওয়ার পর শারীরিক অবস্থা খারাপ শুনে আরও কয়েকজন হাসপাতালে গেছেন।

তিনি বলেন, মাওলানা সুলতান উচ্চ রক্তচাপের রোগী ছিলেন। এই সমস্যার জন্য তিনি মাথা ঘুরে পড়ে যান। মৃত্যুর কারণ স্ট্রোক বলে ধারণা করছেন সিভিল সার্জন। দুই ছেলে ও এক মেয়ে সন্তানের জনক মাওলানা সুলতানের বাড়ি নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায়। তিনি একাই সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কোয়ার্টারে থাকতেন।

 

Developed by :