Friday, 25 September, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




সাদা মনের রাজনীতিবিদ আনোয়ার উদ্দিনকে চোখের জলে শেষ বিদায়

বার্তা ডেস্ক: মিছিল, মিটিং কিংবা সমাবেশে। দলের সুদিন কিংবা দুর্দিনে যিনি থাকতেন সবার আগে। আর কোনদিন তাকে দেখা যাবে না কোনো আয়োজনে। তিনি নেই, এসবের কোথাও পড়বে না আর তাঁর পদচিহ্ন।

বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অত্যন্ত সাদা মনের রাজনীতিবিদ আনোয়ার উদ্দিনকে চোখের জলে শেষ বিদায় জানালো দলীয় নেতাকর্মী আর আত্মীয়-স্বজন ও সর্বস্তরের জনতা। শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় পাখিয়ালা ঈদগাহ মাঠে তাঁর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজায় অংশ নেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর, পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হামিদুর রহমান শিপলু, জেলা যুবলীগ নেতা ছালেহ আহমদ জুয়েল, উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন প্রমুখ। জানাজা শেষে তাকে কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এর আগে তাঁর লাশ বাড়িতে পৌঁছালে তাঁকে শেষবারের মতো দেখতে সেখানে ভিড় করেন দলের নেতাকর্মী এবং আত্মীয়-স্বজনরা। এ সময় অনেকেই কান্নায় ভেঙে পড়েন।

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি…রাউজিন)। তাঁর মৃত্যুতে রাজনৈতিক অঙ্গনে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুস জটিলতাসহ নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে, ২ মেয়ে ও আত্মীয়-স্বজনসহ অনেক গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন গত ২৫ আগস্ট হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে সিলেট নর্থইস্ট মেডিক্যাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এতে তাঁর শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় পরিবেশমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের নির্দেশে গত রবিবার (০৬ সেপ্টেম্বর) তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার বেলা ১২টার দিকে তিনি মারা যান।

আনোয়ার উদ্দিন ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যোগদানের মাধ্যমে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। ১৯৭৭-৭৯ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ৭৯ সাল থেকে দীর্ঘ সময় ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এরপর দীর্ঘদিন তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০১৬ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি দলের বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তিনি দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন। রাজনীতির পাশাপাশি বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক

প্রকাশ করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার একজন একনিষ্ঠ অনুসারী আনোয়ার উদ্দিনের মৃত্যুতে বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগে তাঁর মতো একজন নিবেদিতপ্রাণ ও ত্যাগী নেতার অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এলাকার বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তাঁর ভূমিকা উপজেলাবাসীর হৃদয়ে চির জাগরুক হয়ে থাকবে।

 

Developed by :