Wednesday, 28 September, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজার পৌর নির্বাচনে সংঘাতের শঙ্কা বাড়ছেই!

ছাদেক আহামদ আজাদ: বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘনিয়ে এসেছে। আর মাত্র পাঁচ দিন পর শুরু হবে ইভিএমে ভোটযুদ্ধ। এরইমধ্যে প্রচারণামুখর উৎসবে শরিক হয়েছেন পৌরবাসী। তবে, নির্বাচন কতটুকু উৎসবমুখর হবে, তা নিয়ে নানা শঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে ‘আঞ্চলিক ঐক্য’ গড়তে ব্যর্থ হয়ে কেউ কেউ এলাকার দুর্বল ভোটারদের টানাটানিসহ চোখ রাঙ্গানোর খবর রটেছে। আবার ‘বরদাশত করা হবে না’ বলে ফেসবুকে পাল্টা জবাব দেয়ারও ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া, কৃষকলীগের কমিটি ও আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কাশেম পল্লবের তীর্যক বক্তব্য নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী রাজনীতি ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। বিষয়টি কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ পর্যন্ত গড়িয়েছে।

বুধবার (০৮ জুন) বিকেলে পৌরসভার এক তরুণ ভোটার তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক টাইমলাইনে ‘আমাকে হুমকি ধামকি দিয়ে হটানো যাবে না’ স্ট্যাটাস দিয়েছে। এছাড়া আঞ্চলিকতা ইস্যুতে ছোটখাটো দ্বন্দ্ব-সংঘাত দানাবাঁধার খবর পাওয়া গেছে। এসব কারণে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছেন বিভিন্ন প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক ও সাধারণ ভোটার। সচেতন মহলের মতে, যেকোনো সময় এসব ইস্যু নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। তাঁরা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সংশ্লিষ্টদের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ করেছেন।

এদিকে, নির্বাচনে নানা আশঙ্কার কথা উল্লেখ করে গতকাল বিকেলে ফেসুবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন, আওয়ামী লীগের ‘প্রতিবাদী’ বিদ্রোহী প্রার্থী চামচ প্রতীকের জিএস ফারুকুল হক এর ছোট ভাই হাসানুল হক। এতে তিনি উল্লেখ করেন, ‘ভোট মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার। স্থানীয় নির্বাচনে ভোটারগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেবেন, এটাই স্বাভাবিক। আগামী ১৫ই জুন বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে আমরা দেখতে পাচ্ছি কতিপয় ঘৃন্য মানসিকতার লোক গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে কাজ করছেন। তারা ‘চামচ মার্কা’র পক্ষে কাজ করছেন এমন অনেককে বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছেন অনবরত। যার অনেকগুলো প্রমাণ আমাদের হাতে আছে।’

তিনি আরো উল্লেখ করেন, ‘জয় পরাজয় নিশ্চিত হবে ভোটের মাধ্যমে। জনগণ যদি আপনাদের ভোট দেয় তাতে আমাদের কোন সমস্যা নাই। কিন্তু আপনারা যেসব কর্মকান্ড চালাচ্ছেন তাতে মনে হচ্ছে হারার আগেই হেরে গেছেন।’ হাসানুল হক লিখেন, ‘আমরা পরিস্কার ভাষায় বলতে চাই আমাদের কর্মীদের কেউ অন্যায়ভাবে হুমকি ধামকি বা হামলা-মামলার ভয় দেখান তাহলে সেগুলো বরদাশত করা হবেনা। আমরা প্রশাসন এবং নির্বাচন কমিশন বরাবর প্রমাণসহ অভিযোগ করতে বাধ্য হব। আমরা চাই সুষ্ঠু এবং উৎসবমূখর পরিবেশে নির্বাচন, কোন নোংরামির রাজনীতি নয়।’

এ বিষয়ে পৌর নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারি রিটার্নিং অফিসার সৈয়দ কামাল হোসেন বলেন, আমরা সম্পূর্ণ শঙ্কামুক্ত পরিবেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে বদ্ধ পরিকর। নির্বাচন যাতে কোনোভাবে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সে ব্যাপারে আমরা সতর্ক রয়েছি।

তিনি বলেন, কোন প্রার্থীর সমর্থকদের হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই, কেউ অভিযোগও দেয়নি। এরপরও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি খতিয়ে দেখবে। তথ্য-প্রমাণ পেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলেও মন্তব্য করেন সৈয়দ কামাল হোসেনে। তিনি উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

এদিকে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মো. আব্দুস শুকুর এর সমর্থনে বুধবার (০৮ জুন) বিকেলে বিয়ানীবাজার পৌরশহরে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করেন মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র মো. ফজলুর রহমান, কুলাউড়া পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক সিপার আহমদ, কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জুয়েল আহমদ, বড়লেখা পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী। পরে এ ৪ মেয়র পৌরবাসীর উদ্দেশ্যে অভিন্ন কণ্ঠে গণমাধ্যমকে বলেন, পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে নৌকায় ভোট দিন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাদেরকে আধুনিক ও ডিজিটাল পৌরসভা উপহার দিবেন। এ সময় মেয়র প্রার্থীসহ তাদের সাথে ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাকুসুল ইসলাম আউয়াল।

পৌর এলাকার প্রত্যেক ঘরে ঘরে যাওয়ার চেষ্টা করছেন আওয়ামী লীগের ‘প্রতিবাদী’ প্রার্থী চামচ প্রতীকের জিএস ফারুকুল হক। তিনি প্রতিদিন পথসভা, ঘরোয়া বৈঠক ও গণসংযোগে ব্যস্ত পার করছেন। গতকাল বুধবার দিনব্যাপী তিনি পৌর এলাকার ৫, ৬, ৭ ও ৯নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী জনসংযোগ করেন। এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন বিপুল সংখ্যক কর্মী-সমর্থক।

বিকেলে জিএস ফারুকুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতিমুক্ত পৌরসভা গড়তে আমি প্রাণপন চেষ্টা করবো। উন্মুক্ত টেন্ডারের মাধ্যমে পৌরসভার সকল কাজ করা হবে। নিশ্চিত করবো জবাবদিহিতা।’ তিনি বলেন, ‘সকল জরিপে আমি এগিয়ে রয়েছি। এজন্য আমার সমর্থকদের বিভিন্নভাবে বাধা দেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলেও জানান তিনি।’ ভোটারদের কাছে চামচ প্রতীকে ভোট ভিক্ষা চান ফারুকুল হক।

প্রচারণায় পিছিয়ে নেই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এবং দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হাজি আব্দুল কুদ্দুছ টিটু। তিনি গতকাল বিকেলে ৮নং ওয়ার্ডের সুপাতলাসহ দিনব্যাপী বিভিন্ন গ্রামে গণসংযোগ করেন। পরে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী এ প্রার্থী গণমাধ্যমকে বলেন, প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা হলো বিয়ানীবাজার। এজন্য পৌরশহর পরিচ্ছন্ন ও দৃষ্টিনন্দন হওয়া বাঞ্ছনীয়। তিনি বিজয়ী হলে প্রবাসীদের জন্য ‘এনআরবি সেন্টার’, শহরে সিসিটিভি ক্যামেরা, বিনোদন পার্ক, আইটি সেন্টার ও ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস’ চালুর কথা পুণব্যক্ত করেন। তিনি পৌরবাসীর দোয়া ও হেলমেট প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন।

বিয়ানীবাজার পৌরসভার সাবেক প্রশাসক ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. তফজ্জুল হোসেন অনেকটা কৌশলে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার কর্মীবাহিনী দিনব্যাপী গণসংযোগ করেন। বয়োজ্যেষ্ঠ এ প্রার্থী রাতে কর্মীসভাসহ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এলাকার ভোটের কারিগরদের নিয়ে বৈঠক করছেন। যাতে খুব সহজেই নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়া যায়। তফজ্জুল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রতিদ্বন্দ্বী সকল মেয়র প্রার্থীদের চেয়ে বয়সে এবং জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার অভিজ্ঞতা বেশি। জীবনের শেষ সময়ে মানুষের খেদমত করে মরতে চান তফজ্জুল হোসেন। এজন্য তিনি শেষবারের মতো ‘জগ’ প্রতীকে ভোট দিতে পৌরবাসীর প্রতি আকুল আবেদন জানান।

কমিউনিস্ট পার্টি মনোনীত কাস্তে প্রতীকের মেয়র প্রার্থী এডভোকেট মোহম্মদ আবুল কাশেম গতকাল বিভিন্ন গ্রামে এবং পৌরশহরে গণসংযোগ করেছেন। তাঁর প্রচারণার স্লোগান হলো, ‘দক্ষ দেখে পক্ষ নিন, কাস্তে মার্কায় ভোট দিন।’ ‘দুর্নীতিকে কবর দিন, কাস্তে মার্কায় ভোট দিন।’ নির্বাচনে সিপিবি’র প্রার্থী হওয়াটাই বড় চমক বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এছাড়া, বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুস সামাদ আজাদ (হ্যাঙ্গার), মো. আব্দুস সবুর (মোবাইল), আহবাব হোসেন সাজু (কম্পিউটার), অজি উদ্দিন (নারিকেল গাছ), জাতীয় পার্টির সুনাম উদ্দিন (লাঙ্গল)।

উল্লেখ্য, আগামী ১৫ জুন ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) পৌরসভার দ্বিতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে মোট ভোটার ২৭ হাজার ৩৬৯ জন। এতে ১০ মেয়র ও ৫৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

 

Developed by :