Tuesday, 26 January, 2021 খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজারে ডাকাতির মৌসুম শুরু, আটক ৩ ডাকাতের পরিচয়

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম: সংঘবদ্ধ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের চোখ প্রবাসী অধ্যুষিত বিয়ানীবাজার উপজেলা। প্রতিবছর শীত মৌসুম এলেই এ উপজেলার প্রবাসী ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের বাড়িতে হানা দিয়ে ডাকাতদল নগদ লক্ষ লক্ষ টাকা, বিপুল পরিমাণ সোনা ও মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময়ে ডাকাতদের কাজে বাঁধা দেওয়ায় বাড়ির লোকজনকে রক্তাক্ত জখম করারও ঘটনা ঘটে।

তবে, প্রতিবছর ডাকাতিকালে কিংবা ডাকাতির পর বিভিন্ন তথ্যের মাধ্যমে পুলিশ দু’চারজন ডাকাত আটক করতে সক্ষম হয়। তখন পুলিশ ডাকাতচক্র নির্মুলে নড়েচড়ে উঠলেও পরে তা ভাটা পড়ে।

এদিকে, বিয়ানীবাজারে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৩ ডাকাতকে আটক করেছে ডিবি ও থানা পুলিশ।

বিয়ানীবাজারে আটক ৩ ডাকাত

মঙ্গলবার রাত পৌণে ৮ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর এলাকার খাসা নয়াবাজার এলাকা থেকে সিএনজি অটোরিক্সাসহ তাদের আটক করা হয়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অপর একটি সিএনজিতে থাকা আরো কয়েকজন ডাকাত পালিয়ে যায়।

আটককৃতরা হলো, বিয়ানীবাজার পৌর এলাকার পশ্চিম নয়াগ্রামের ভাড়াটিয়া (মূল বাড়ি ময়মনসিংহ) মালু হোসেনের পুত্র সাইরুল ইসলাম ও দুবাগ ইউনিয়নের বাঙ্গাল হুদা গ্রামের খলিলুর রহমানের পুত্র হোসেন আহমদ (৩০), কমগঞ্জ উপজেলার কাটাবিল গ্রামের প্রয়াত মদরিছ মিয়ার পুত্র ইসলাম মিয়া (২৮)।

পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাতরা জানিয়েছে, রাতে তারা মুড়িয়া ইউনিয়নের একটি বাড়িতে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। পুলিশ সিএনজি থেকে দু’টি বন্দুক, একটি রিভলবার, ১৪টি কার্তুজ, ৩টি লম্বা দাসহ ডাকাতির নানা সরঞ্জামাদি উদ্ধার করে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ পালিয়ে যাওয়া ডাকাত আটকে ব্যস্ত রয়েছে। এছাড়া পালিয়ে যাওয়া ও স্থানীয় সহযোগিদের আটক করতেও পুলিশ সম্ভাব্য স্থানে অভিযান চালাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এবারও শীত ‘ডাকাতির মৌসুম’ শুরু হতেই বিয়ানীবাজার উপজেলায় কয়েকটি বাড়িতে হানা দেয় দুর্ধর্ষ ডাকাতদল। কিন্তু এলাকাবাসী পাহারা দেওয়ায় তারা ব্যর্থ হয়ে ফিরে যায়। এরপরও রাতের আঁধারে কয়েকটি বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম অনলাইনে ‘বিয়ানীবাজারে অপরাধীরা সক্রিয়, আতঙ্কে গ্রামাঞ্চলের মানুষ’ শিরোনামে একটি খবর ছাপা হয়। এরপর প্রশাসন আবারও নড়েচড়ে ওঠে। আবার, গত ১১ দিনের ব্যবধানে উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের কালাইউরা গ্রাম থেকে রাতের বেলা কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙ্গে ৩টি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। এরমধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় পুলিশ একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে।

সর্বশেষ গত সোমবার গভীর রাতে ফখরুদ্দিনের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল চুরি হয়। অনেকের মতে, মোটরসাইকেল চুরির সাথে ওই এলাকার কেউ না কেউ জড়িত রয়েছে। এ চক্রের চিহ্নিতদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে মোটরসাইকেল উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলেও তারা মনে করেন।

সার্বিক বিষয়ে বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ হিল্লোল রায় বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আমরা ৩ ডাকাত ও আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাতির সরঞ্জামাদি উদ্ধার করেছি। তিনি বলেন, পুলিশ অপর ডাকাতদের আটক করতে তৎপর রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ওসি বলেন, বিয়ানীবাজারে চুরি-ডাকাতি রোধ করতে টহল জোরদার করা হয়েছে। এসব অপকর্মের সাথে যারা সম্পৃক্ত তাদের আটক করা হবে।

 

Developed by :