Friday, 3 July, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




করোনায় আক্রান্তের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি সিলেটে : উপাচার্য মোর্শেদ

সিলেট: চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পরা প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনায় আক্রান্ত হওয়ার দিক থেকে সিলেট সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী।

সিলেটের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটিতে রোববার (১৫ মার্চ) সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যালারী-১ এ অনুষ্ঠিত করোনাভাইরাসের সংক্রমণ, প্রতিকার ও প্রতিরোধ সচেতনতা বিষয়ক সেমিনারে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী বলেন, সিলেট অঞ্চলে বিদেশীদের আসা যাওয়া বেশী তাই করোনায় আক্রান্তের দিক দিয়ে সিলেট ঝুঁকিপূর্ণ। সেজন্য যারা ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দেশ থেকে সিলেটে এসেছেন তাদেরকে জনসমাগমে না এসে নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার পরামর্শ দেন তিনি।

বিদেশী যারা বাংলাদেশে আসেন তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা খুবই জরুরী উল্লেখ করে ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী বলেন, আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা অনেক উন্নত আর তাই ভাল চিকিৎসা পেতে এখন আর বিদেশ যাবার প্রয়োজন নেই।

তিনি বলেন, ব্যক্তিগত সচেতনতা এবং সতর্কতা অবলম্বন করলে সহজেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব। বিশ্ব করোনাভাইরাসে ভয়াবহ পরিণতির দিকে যাচ্ছে এবং কোভিড-১৯ খুব দ্রুত গঠন পরিবর্তন করে বলে এর সঠিক প্রতিরোধ টিকা তৈরি করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ রাগীব আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) শ্রীযুক্ত বনমালী ভৌমিক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে নিজ নিজ পরিবারের সদস্যদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করে করোনাভাইরাসকে প্রতিরোধে ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. মো. আবেদ হোসেন বলেন, অস্থিরতা এবং অসাবধানতা কোভিড-১৯ বিস্তার বাড়াতে পারে। তাই আমাদেরকে সতর্ক হতে হবে এবং জনসচেতনতা গড়ে তুলতে হবে।

লিডিং ইউনিভার্সিটির পাবলিক হেলথ বিভাগের প্রভাষক ডা. সাবরিনা ফরিদা চৌধুরীর সঞ্চালনায় সেমিনারে করোনাভাইরাসের প্রতিকার ও প্রতিরোধের উপর তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. জিয়াউদ্দিন আহমেদ এবং সহকারী অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ শিবলী খান।

সেমিনারে লিডিং ইউনিভার্সিটির আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. এম রকিব উদ্দিন, কলা ও আধুনিক ভাষা অনুষদের ডীন প্রফেসর নাসির উদ্দিন আহমেদ, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সচিব মেজর (অব.) শায়েকুল হক চৌধুরী, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মোস্তাক আহমদ দীন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব.) মো. শাহ আলম পিএসসি, প্রক্টর মো. রাশেদুল ইসলামসহ বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

Developed by :