Friday, 3 July, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




নাসির খানের ম্যাকানিজমে বিশ্বনাথ আ’লীগের দু’গ্রুপ এক মঞ্চে

এমদাদুর রহমান মিলাদ, বিশ্বনাথ: দীর্ঘদিনের গ্রপিং কোন্দলের নিরসন হয়েছে বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগে। অভ্যন্তরীণ কোন্দল দূর করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম গতিশীল করতে বিভাজন ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন নেতাকর্মীরা। আর এ দুঃসাধ্য কাজটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির খানের ম্যাকানিজমে সম্ভব হয়েছে।  এতে দলের গতি সঞ্চার হবে বলে মনে করছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগে থাকা প্রায় ৭ বছরের দ্বন্দের কালো ছায়া দূর করে নতুন সূর্য উদিত হল। ২০১৮ সালের ১৩ জানুয়ারী উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কার্যকরী কমিটি অনুমোদনের পর গতকাল মঙ্গলবার এই প্রথম বারের মতো উভয় গ্রæপের উপস্থিতিতে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হওয়ায় আনন্দের ছোঁয়া লেগেছে দলের তৃণমূলে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর অনুরাসী দুটি গ্রুপের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্ব নিরসন করে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ গ্রহন করেন জেলা আওয়ামী লীগ। এরপর উভয় গ্রুপের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে একাধিক বৈঠকে বসেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান। এরই ফলশ্রুতিতে বিশ্বনাথ আওয়ামী লেিগর দীর্ঘদিনের গ্রুপিং কোন্দল নিরসন হলো।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্বনাথ উপজেলা বিআরডিবি মিলনায়ন প্রাঙ্গনে জেলা আওয়ামী লীগের নির্দেশে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের উভয় (শফিকুর রহমান চৌধুরী ও আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী) গ্রুপের সম্মিলিত উদ্যোগে ‘মুজিব শতবর্ষ উদযাপনে করণীয় শীর্ষক’ কর্মীয় সভার আয়োজন করা হয়। সভায় একই মঞ্চে উপস্থিত হন উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

কর্মীসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান বলেন, এলাকার উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে নৌকা প্রতিক দিয়ে যাতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দেওয়া হয় আজ থেকে আমরা সবাই সেই লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাব।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দীন খান বলেন, দলকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার কোন বিকল্প নাই। তাই আজ থেকে বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগের সকল দলীয় কর্মকান্ড ঐক্যবদ্ধভাবে পরিচালিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বাধীন সরকারের বাস্তবায়িত সকল উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের সকলের। আর ঐক্যবদ্ধতা ছাড়া কখনও একাজ করা সম্ভব হবে না।

উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহ আসাদুজ্জামান আসাদের সভাপতিত্বে এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক আমির আলী চেয়ারম্যান ও মকদ্দছ আলীর যৌথ পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট-২ আসনের সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোশাহিদ আলী, সাবেক মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নাজনিন হোসেন, সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক কবির উদ্দিন, সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাডভোকেট আজমল আলী, উপদেষ্টা মন্ডলীর সাবেক সদস্য ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম নুনু মিয়া।

বক্তব্য রাখেন, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ছুরাব আলী, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আশিক আলী, আলতাব হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি পার্থ সারথী দাশ পাপ্পু, সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসাইন, যুগ্ম সম্পাদক শাহ বোরহান আহমদ রুবেল। সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সুফি শামসুল ইসলাম ও গীতাপাঠ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক জয়ন্ত আচার্য্য। সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সমছু মিয়া, সেলিম আহমদ সেলিম, মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, জবেদুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক শাহ ফয়েজ আহমদ সেবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, আবুল কালাম জুয়েল, আবদুল আজিজ সুমন, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবদুল মতিন, দপ্তর সম্পাদক সাহিদুল ইসলাম সাহিদ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ফখর উদ্দিন মাস্টার, প্রচার সম্পাদক নিখিল পাল, বন ও পরিবেশ সম্পাদক রুনু কান্ত দে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাহবুব রহমান লিলু, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক রনজিত ধর রন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শামীম আহমদ, সহ দপ্তর সম্পাদক নুরুল হক মেম্বার, সহ প্রচার সম্পাদক ও প্রকাশনা সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য হাজী মজম্মিল আলী, ছয়ফুল হক চেয়ারম্যান, শেখ নূর মিয়া, আফরোজ বক্স খোকন, মানিক মিয়া, আনোয়ার আলী, শেখ আজাদ, মিজানুর রহমান মিজান, ডাক্তার শানুর হোসেন, ফজর আলী মেম্বার, রফিক হাসান মেম্বার, এনামুল হক মেম্বার, নিজাম উদ্দিন, বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মধ্যে সদরের সাধারণ সম্পাদক মহব্বত আলী জাহান, লামাকাজীর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অরবিন্দু পাল, খাজাঞ্চীর সভাপতি আবদুন নূর, সাধারণ সম্পাদক শংকর চন্দ্র ধর, অলংকারীর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী হীরা মিয়া, সাধারণ সম্পাদক তফজ্জুল আলী, রামপাশার সভাপতি নজরুল ইসলাম, নজির মিয়া, দৌলতপুরের সাবেক সভাপতি আবদাল মিয়া, দেওকলসের সভাপতি আবদুল মোমিন, সাধারণ সম্পাদক দিলোয়ার হোসেন রুপন, দশঘরের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস মিয়া, উপজেলা কৃষক লীগের সহ সভাপতি সাহাব উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আবদুল হান্নান বদরুল, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি হাজী আমির আলী, সহ সভাপতি তাজির আলী, নির্বাহী সম্পাদক আজাদ মিয়া, জেলা যুবলীগ নেতা মাসুদ আহমদ, আবুল হোসেন, উপজেলা যুবলীগ নেতা শাহনেওয়াজ চৌধুরী সেলিম, আমির আলী, ফয়ছল আহমদ মেম্বার, কামরুজ্জামান সেবুল, আক্তার হোসেন, জয়নাল আবেদীন, জাবেদ মিয়া, তাজুল ইসলাম, শাহ আলম খোকন, মনোহর হোসেন মুন্না, সঞ্চিত আচার্য্য, সায়েদ আহমদ, মুহিবুর রহমান সুইট, এমদাদ হোসেন নাইম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বিভাংশু গুন বিভু, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বদরুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক, প্রচার সম্পাদক সিজিল মিয়া, নেতা রফিক আলী, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা সিতার মিয়া, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সালমান রব্বানী, লিটন দে, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা রাজু আহমদ খান, শাহীন আহমদ, নাসির উদ্দিন, হিমেল আহমদ, মিয়াদ আহমদ, মারুফ আহমদ, এস এম জুয়েল, জাকির হোসেন মামুন, জেলা ধ্রæবতারার সভাপতি আবদুল বাতিন প্রমুখসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী।

 

Developed by :