Friday, 9 December, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




২৪ ঘণ্টায় ৪ ফিলিস্তিনিকে গুলি করে মারলো ইসরায়েলি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইসরায়েলের বাহিনী ২৪ ঘণ্টায় চার ফিলিস্তিনিকে গুলি করে মেরেছে। নিহতদের মধ্যে একজন কিশোর ও এক পুলিশ সদস্যও রয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কয়েক ডজন ফিলিস্তিনি।

গত বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) রাত থেকে বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাত পর্যন্ত এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এ খবর জানা যায়।

সংবাদমাধ্যম জানায়, বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে সেখানকার এক বাসিন্দার বাড়ি গুঁড়িয়ে দেয় ইসরায়েলি বাহিনী। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু হলে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি চালায় ইসরায়েলি সেনারা। এতে দু’জন নিহত হন। নিহতদের মধ্যে একজন ১৯ বছর বয়সী শিক্ষার্থী ইয়াজান আবু তাবেক, অপরজন ফিলিস্তিনের পুলিশ সদস্য তারেক বাদোয়ান।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী দাবি করেছে, ফিলিস্তিনের সশস্ত্র সংগঠন হামাসের সঙ্গে সম্পৃক্ততার দায়ে আহমাদ ক্বানবা নামে এক ব্যক্তির ওই বাড়ি গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তখন নিরাপত্তা বাহিনী আক্রান্ত হলে গুলি চালানো হয়।

তবে জেনিন শহরের গভর্নর আকরাম রাজৌব বলেছেন, ইসরায়েলি বাহিনী বিক্ষোভস্থলের পাশে দাঁড়ানো পুলিশ সদস্যকেও গুলি করে মেরেছে। সংবাদমাধ্যমের ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট দেখা যায়, তিনি কোনো সহিংসতায় অংশ নেননি, অথচ তাকেও গুলি করে মারা হলো।

এদিনই জেরুজালেমের ওল্ড সিটি এলাকায় ইসরায়েলি পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান আরেক ফিলিস্তিনি। ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের দাবি, নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে ওই ফিলিস্তিনি গুলি ছুড়লে পাল্টা জবাব দেয়া হয়।

এর আগে বুধবার রাতে হেবরন শহরে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়লে ১৭ বছর বয়সী কিশোর মোহাম্মদ আল হাদ্দাদকে গুলি করে মারে ইসরায়েলি বাহিনী।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল দ্বন্দ্বের অবসানে জানুয়ারির শেষ দিকে ‘মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা’ প্রকাশ করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়ে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি হলো শতাব্দীর সেরা সুযোগ। আমরা তা এড়িয়ে যাব না।’

তবে সেটিকে ‘ইসরায়েলি স্বার্থ-সুরক্ষা’র পরিকল্পনা আখ্যা দিয়ে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে বলা হয়, ‘ট্রাম্পের এই চুক্তির মাধ্যমে পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুজালেম, জর্ডান উপত্যকায় দখলদারিত্ব ও অবৈধ বসতি স্থাপনে ইসরায়েলকে অনুমতি দেয়া হয়েছে। আমরা এই সমাধান কখনোই মেনে নেব না। ইসরায়েলি দখলদারিত্বের অবসান ঘটাতে ফিলিস্তিনিরা এখনো দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’

ওই পরিকল্পনা প্রকাশের পর থেকে ইসরায়েল তাদের দখলকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চলে কথিত অভিযানের নামে বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দিচ্ছে। এক্ষেত্রে তারা এক ফিলিস্তিনির ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর গাড়ি চালিয়ে দেয়ার অভিযোগ তুলে সেটিকে অজুহাত দেখাচ্ছে।

 

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by :