Wednesday, 23 September, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




রাহুল গান্ধীকে ‘টিউবলাইট’ বললেন মোদি

নিউজ ডেস্ক: ‘লাঠিপেটা’ মন্তব্যের পাল্টা হিসাবে রাহুল গান্ধীকে আক্রমণের জন্য তিরটা আগেই বাছাই করে রেখেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার দেশটির লোকসভায় রসিকতা আর তীব্র কটাক্ষের মিশেলে রাহুলকে ধরাশায়ী করলেন তিনি।

ভাষণের প্রথম থেকেই তার সরকারের একের পর এক ‘সাহসী’ সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা তুলে ধরেন মোদি। সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ, রামমন্দির বিতর্কের সমাধানের কথা তুলে ধরে বোঝানোর চেষ্টা করছিলেন তার সরকারের দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাও। আগের আমলের তুলনাও করছিলেন। এর পরই তিনি নিশানা করেন রাহুল গন্ধীকে।

তার নাম না করেই বলেন, ‘আমি গত কাল কংগ্রেসের এক নেতার ইশতাহারের কথা শুনছিলাম। তিনি বলেছেন ছ’মাসের মধ্যেই মোদীকে ডান্ডা মারা হবে। এই কাজটা সত্যি কঠিন।’

মোদি এটুকু বলার পরেই সরকার পক্ষের সাংসদদের মধ্যে হাসির রোল ওঠে। শুরু হয় ‘‘শেম শেম’’ ধ্বনিও। একটু চুপ থেকে ফের মোদি বলতে শুরু করেন, ‘ডান্ডা মারার কাজটা কঠিন বলেই ছ’মাস সময় লাগবে। তা ভাল। কিন্তু আমিও মনে করেছি এই ছ’মাসে সূর্য নমস্কারের সংখ্যা আরও বাড়াব।’ এর পর রসিকতার মেজাজটা ধরে রেখেই আবেগতাড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গত ২০ বছর ধরে গালিগালাজ শুনে নিজেকে গালি প্রুফ তৈরি করেছি। আর এই ছ’মাসে এমন সূর্য নমস্কার করব যে নিজের পিঠ ডান্ডা-প্রুফ করে নেব।’ আরও খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি, যে আমাকে ডান্ডা মারার কথা আগেই ঘোষণা করা হয়েছে। আমিও এই ছ’মাস ব্যায়াম করার জন্য সময় পাব।’

প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতার মাঝেই তাকে থামিয়ে দিয়ে বলতে যান রাহুল গান্ধী। ফের সরস ভঙ্গিতে মোদি বলেন, ‘আমি ৩০ থেকে ৪০ মিনিট ধরে বলছি। কিন্তু কারেন্ট পৌঁছতে এত দেরি লাগল।’ এর পর কিছুক্ষণ থেমে রাহুলকে শেষ অস্ত্র প্রয়োগ করেন তিনি। বলেন, ‘কিছু টিউবলাইট আছে যার জ্বলতে এতটাই সময় লাগে।’ সূত্র: আনন্দ বাজার

 

Developed by :