Friday, 3 July, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |




কুরআনের সুরার নাম পরিবর্তন নিয়ে তুমুল বিতর্ক!

বার্তা ডেস্ক: কুরআন আল্লাহর কিতাব। এ কিতাব সম্পর্কে বিন্দুমাত্র সন্দেহের সংশয় নেই। এটি মহান আল্লাহর ঘোষণা। সম্প্রতি পবিত্র কুরআনুল কারিমের একটি সুরার নাম নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে তুমুল বিতর্ক।

সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে পবিত্র কুরআনের নতুন একটি পাণ্ডুলিপি ছাপানো হয়। এতে কুরআনুল কারিমের ১৭তম সুরাটিকে ‘বনি ইসরাইল’ নামে ছাপানো হয়। এ নিয়ে বিতর্ক। আরব বিশ্বে সুরাটি ‘সুরা ইসরা’ হিসেবেই সমধিক পরিচিত। নতুন ছাপানো এ কপিতে ইসরার পরিবর্তে বনি ইসরাইল লেখায় আরব আমিরাতসহ আরব বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

আরব আমিরাতের ইএম নিউজ জানায়, দেশটিতে পবিত্র কুরআনের ছাপানো নতুন পাণ্ডুলিপিতে ‘আল-ইসরা’ সুরার নাম পরিবর্তন করে ‘বনি ইসরাইল’ নামকরণের একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের পরে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা বিষয়টি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

কুরআনুল কারিমের নতুন ছাপানো এ পাণ্ডুলিপিটি আরব আমিরাতের ‘দারুল বির’ প্রকাশনা সংস্থা প্রকাশ করেছে। খুব শিগিরই নতুন ছাপানো এ পাণ্ডুলিপিটি বিভিন্ন মুসলিম দেশে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে বিষয়টিকে হাইলাইট করা হয়েছে। তাহলো- সুরাটির ‘ইসরা’ নাম পরিবর্তন করে ‘বনি ইসরাইল’ লেখায় সারা বিশ্বের ইয়াহুদিরা খুশি হবে।

আরব বিশ্বের দেশগুলোতে সুরাটি ‘ইসরা’ নামে সমধিক পরিচিত হলেও এশিয়া মহাদেশে সুরাটি ‘বনি ইসরাইল’ নামেই বেশি পরিচিত। তবে কুরআনের বিখ্যাত তাফসির গ্রন্থগুলোতে সুরা বনি ইসরাইলের অপর নাম ‘ইসরা’-ই বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ‘সুরাটি পবিত্র নগরী মক্কায় নাজিল হয়। সরাটি ১২ রুকু ও ১১১ আয়াত বিশিষ্ট। সুরাটি শুরুতে ‘সুবহান’ শব্দ থাকায় এটিকে সুরা সুবহান এবং পরবর্তীতে বনি ইসরাইল সম্পর্কে আলোচনা আসায় এটিকে সুরা বনি ইসরাইল বলা হয়।

আবার এ সুরাটি প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক মেরাজের ঘটনার বর্ণনা থাকায় এটিকে সুরা ইসরা হিসেবেও নামকরণ করা হয়।

এ সুরাটিকে কুরআন মাজিদের ছাপানো কপিতে ইসরা, বনি ইসরাইল যে নামই উল্লেখ করা হোক না কেন, এ নিয়ে বিতর্কের কিছু নেই।

 

Developed by :