Tuesday, 12 November, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজারে নিজু হত্যা মামলার রায় (বিস্তারিত)

রায় ঘোষণা শেষে আদালতে আইনজীবীর সাথে নিজু হত্যা মামলার নির্দোষপ্রাপ্তরা

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম: বিয়ানীবাজারে চাঞ্চল্যকর নিজু হত্যা মামলায় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জামাল হোসেনসহ ১২ আসামী বেকসুর খালাস পেয়েছেন। গতকাল বুধবার আদালত এই রায় ঘোষণা করেন। এ সময় আসামীরা আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

বিয়ানীবাজারে অন্ধকার রাতে দু’পক্ষের সংঘর্ষ চলাকালে বন্দুকের গুলিতে নিহত হন সবজি ব্যবসায়ী নিজু আহমদ (১৬)। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়েরের দীর্ঘ ৫ বছর পর গতকাল বুধবার ছিল রায় ঘোষণার নির্ধারিত দিন। ঐদিন বিকেল ৩টায় সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. আমিরুল ইসলাম রায় ঘোষণা করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৩০ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৯টায় দক্ষিণ বিয়ানীবাজার সিএনজি স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা জামাল ও শ্রমিক নেতা সাবুল গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ চলাকালে বন্দুকের গুলিতে প্রাণ হারান শহরের সবজি ব্যবসায়ী ও কসবা’র সুবেল মিয়ার পুত্র নিজু আহমদ (১৬)। এ ঘটনায় রক্তাক্ত জখমপ্রাপ্ত হন কমপক্ষে ১০জন।

এ ঘটনায় শ্রমিক নেতা সেলিম আহমদ বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক জামাল হোসেন, শাহজাহান কবির, কলিম উদ্দিন, সাইদুল ইসলাম, ফয়সল হোসেন, সুনাই মিয়া, আলম, কামরুল, হোসেন আহমদ, অপু, আনোয়ারসহ অজ্ঞাতনামা ২০ জনকে আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

সূত্রমতে, হত্যা মামলা দায়েরের কয়েকমাস পর বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ তদন্ত শেষে কামরুল, হোসেন, সাইদুল, আনোয়ারসহ ৫জনকে বাদ দিয়ে ৮জনের নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে । তবে, বাদী পক্ষের নারাজি আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত এ মামলা পুনঃতদন্তের জন্য পিবিআই’কে (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) নির্দেশ দেন। পিআইবি তাদের তদন্তে আবারো বাদপড়া ৫জনকে সংযুক্ত করে ফের চার্জশিট প্রদান করে।

এদিকে, নিজু হত্যা মামলায় বিভিন্ন সময়ে জামাল হোসেন, কলিম উদ্দিনসহ অভিযুক্ত ৯জন কারাবরণ করেন। দীর্ঘ শুনানী শেষে আদালত এ মামলার পৌণে ৫ বছর পর গতকাল বুধবার রায়ে সবাইকে বেকসুর খালাস দিয়ে রায় ঘোষণা করেন। এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন, সরকার পক্ষের কৌশলী অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর এডভোকেট ফখরুল ইসলাম এবং বিবাদী পক্ষের আইনজীবী আব্দুল মজিদ খান মানিক।

রায় ঘোষণার পর বিবাদী পক্ষের আইনজীবী আব্দুল মজিদ খান মানিক বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম’কে জানান, বিজ্ঞ আদালতের রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। এতে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি জানান, রায়ে বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জামাল হোসেনসহ চার্জশিটভুক্ত ১২ আসামীর সবাই খালাস পেয়েছেন।

এদিকে, রায় ঘোষণার পর আদালত প্রাঙ্গণে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জামাল হোসেন বলেন, আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল নিজু হত্যা মামলায় আমিসহ ছাত্রলীগের অসংখ্য নেতাকর্মীদের জড়িয়েছিল। কিন্তু আদালতের রায়ে প্রমাণ হয়েছে, আমরা নিজুকে হত্যা করিনি। তিনি এ মামলা চলাকালে যারা বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

সূত্রমতে, নিজু হত্যা মামলা দায়েরের পর এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৪জনকে আটক করে পুলিশ। তিন মাস জেল খাটার পর তারা জামিনে মুক্তি লাভ করেন। এ মামলার দুই বছর পর ২০১৭ সালের ১৭ মার্চ সিলেটের আদালতপাড়া থেকে বেরুনোর সময় প্রধান আসামী জামাল হোসেনকে র‌্যাব-৯ গ্রেফতার করে। এ মামলার ১২ অভিযুক্ত রায় ঘোষণা পর্যন্ত জামিনে ছিলেন। আসামী আনোয়ার হোসেন (২৮) নামের অপর একজনকে ২০১৭ সালের ২৫ নভেম্বর দুপুরে পৌরশহরে দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করে।

 

Developed by :