Sunday, 8 December, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন, সম্ভাব্য প্রার্থী যারা

ছাদেক আহমদ আজাদ   

বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের বহু প্রতীক্ষিত ও কাঙ্ক্ষিত সম্মেলন নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী ৮ জন প্রার্থী কাউন্সিলরদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। এছাড়া,  নতুন কমিটিতে ঢুকতে একঝাঁক তরুণ সাবেক ছাত্রনেতা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। আগামী সম্মেলনে তাঁরা প্রার্থী না হলেও অনেকটা নিয়ামক শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন

গতকাল সোমবার বিকেলে আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির সভায় নির্বাচন প্রস্তুতি কমিটি গঠন এবং লাউতা ইউনিয়ন ব্যতিত প্রত্যেক ইউনিটে ৩১ জনের কাউন্সিলর তালিকা অনুমোদন করা হয়েছে।

সূত্রমতে, আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মী একটি স্বচ্ছ ভোটের মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করতে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচিত হতে কাউন্সিলরদের বাসা-বাড়িতে যাতায়াত অব্যাহত রেখেছেন। এ অবস্থায় গত কয়েকদিন পূর্বে সাবেক ছাত্রলীগ নেতারা পৌরশহরে জমায়েত হয়েছিলেন। তাদের মধ্য থেকেই আওয়ামী লীগের শীর্ষ পদ ধরে রাখার আলোচনা হয়েছে। তবে এ সভায় ফলপ্রসূ কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানা গেছে।

এদিকে, বিগত ২০ বছর ধরে যারা বিয়ানীবাজারে আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব কিংবা অগ্রভাগে ছিলেন তাদের অনেকেই ঐ সভায় ডাক না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আবার ঐ সভায় আওয়ামী লীগের দুঃসময় কিংবা নির্বাচনে নৌকা বিরোধীতাকারী অনেকের উপস্থিতি নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক কৌতূহল ও প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে। যদিও এ সভায় দু’তিনজন ব্যতীত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী প্রায় সবাই উপস্থিত ছিলেন।

একাধিক সূত্র মতে, কাউন্সিল উপলক্ষে দলের নিবেদিত নেতাকর্মী ও কাউন্সিলররা এবার সোচ্চার। তাঁরা বিয়ানীবাজারের সামগ্রিক অবস্থা বিবেচনা করে দলের নিবেদিতপ্রাণ ব্যক্তিদের দায়িত্বে নিয়ে আসার প্রাণপণ চেষ্টা চালানোর খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে, গতকাল সোমবার বিকেলে পৌর অডিটোরিয়ামে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খানের পরিচালনায় সভায় কমিটির ৩০ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

সভায় আলোচনার মাধ্যমে লাউতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ব্যতিত উপজেলার সবক’টি ইউনিয়ন ও পৌর ইউনিটের কাউন্সিলর তালিকা অনুমোদন করা হয়েছে। তবে, কয়েকটি ইউনিয়নে পুরনো নাম রদবদল করায় তা আজকের মধ্যে সংশোধন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মিলে লাউতা ইউনিয়নের কাউন্সিলর তালিকা পুনঃগঠন ও অনুমোদন করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া জানান, সম্মেলন সুন্দরভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি হাজি আব্দুল আহাদ কলা মিয়াকে আহ্বায়ক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি মোশতাক আহমদকে সদস্য সচিব করে একটি প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

সূত্র মতে, আসন্ন সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হতে ৮ জন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। এর মধ্যে সভাপতি পদে হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া, আতাউর রহমান খান, নজমুল হোসেন ও ইউপি চেয়ারম্যান মাহমদ আলী। কাউন্সিলরদের ভোট পেতে তাঁরা নানামুখি তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া, সাধারণ সম্পাদক পদে বিজয়ী হতে দৌড়ঝাঁপ দিচ্ছেন হারুনুর রশীদ দিপু, মোহাম্মদ জাকির হোসেন, হুমায়ুন কবির, দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন প্রমুখ।

কাউন্সিলরদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিগত সময়ে আওয়ামী লীগের সুসময়, দুঃসময়, রাজপথে, সভা-সমাবেশে যারা অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন, তাদেরকেই তাঁরা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বেছে নিবেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান বলেন, সম্মেলনের জন্য আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত। তিনি বলেন, প্রত্যক্ষ ভোটে নেতা নির্বাচিত করার জন্য কাউন্সিলর তালিকা করা হয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান বলেন, দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট সফরে না এলে আগামী ৭ নভেম্বর বিয়ানীবাজারে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। দু’একদিনের মধ্যে তারিখ চূড়ান্ত করা হবে। তিনি বলেন, সমঝোতা না হলে প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে। এখানে কেন্দ্র বা জেলা আওয়ামী লীগ কোন হস্তক্ষেপ করবে না। -সিলেটের ডাক

 

Developed by :