Monday, 18 November, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




গোলাপগঞ্জে আ’লীগের সম্মেলন, উজ্জ্বীবিত দলীয় নেতাকর্মী

গোলাপগঞ্জ: দীর্ঘ ১৪ বছর পর অনুষ্টিত হচ্ছে গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। আগামী ১৪ নভেম্বর এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। বহু প্রতিক্ষিত এ সম্মেলনের তারিখ ঘোষনার পর প্রাণচঞ্চলতা দেখা দিয়েছে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে। ফলে ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীরা ক্রমশ চাঙ্গা হয়ে উঠছেন।

জানা গেছে, সর্বশেষ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয় ২০০৪ সালে। সম্মেলনে প্রবীণ রাজনীতিবিদ এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরীকে সভাপতি ও রফিক উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত হয়। এ সম্মেলনের পর আর কোন কমিটি গঠিত হয়নি উপজেলা আওয়ামী লীগের।

ফলে হতাশ হয়ে পড়েন দলীয় নেতাকর্মীরা। পুরোনো এ কমিটিতে দীর্ঘদিন থেকে থাকা অনেক নেতা বয়সের ভারে ন্যূজু হয়ে পড়েছেন। অনেকেই চলে গেছেন পৃথীবী ছেড়ে। আবার কেউ কেউ চলে গেছেন প্রবাসে।

জানা যায়, আওয়ামী লীগের শক্ত ঘাটি হিসেবে পরিচিত এ উপজেলা। এ উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিনের মধ্যে অধিকাংশ চেয়ারম্যনই আওয়ামী লীগের ঘরার লোক। অথচ এ উপজেলায় দলীয় কার্যক্রমে মধ্যে ভাটা পড়ে নতুন কমিটি না হওয়ায়। এতে চরম হতাশ ও অসস্তোষ দেখা দেয় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে। উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে যরাা ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকের বায়োজষ্ট হয়ে পড়েছেন। দীর্ঘদিন থেকে এ উপজেলায় আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠনের দাবি ছিল দলের ত্যাগী, পরিক্ষিত, নির্যাতিত ও আপোষহীন নেতাকর্মীদের। কিন্ত হচ্ছে হবে বলে পার হয়েছে ১৪ বছর।

দীর্ঘ সময়ে উপজেলা আ’লীগের কোন সম্মেলন কিংবা নতুন কমিটি গঠিত না হওয়ায় দলীয় কার্যক্রমে দেখা দেয় স্থবিরতা। বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। আগামী ১৪ নভেম্বর এ সম্মেলন অনুষ্টিত হবে।

এ খবর মিডিয়ায় প্রকাশের পর পরই উজ্জীবিত হয়ে উঠে ঝিমিয়ে পড়া দলীয় নেতাকর্মীরা। পদ বঞ্চিত, অবহেলিত, নির্যাতিত ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে প্রাণচঞ্চল।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী রিংকু বলেন, দীর্ঘদিন পর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে এটা অবশ্যই সুখবর। সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন হলে নতুন নেতৃত্ব আসবে উপজেলা আওয়ামী লীগে।

 

Developed by :