Thursday, 6 October, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




সিলেটে নব্য জেএমবি’র আস্তানা, আমির বাংলাদেশেই!

ঢাকা: ডিএমপি’র কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেছেন, নব্য জেএমবি’র প্রধান তামীম চৌধুরী মারা যাওয়ার পর মূসা নব্য জেএমবিকে শক্তিশালী করার চেষ্টা করেছিলো। মূসার ইচ্ছা ছিলো বিস্ফোরক সংগ্রহ করা। সিলেট-চাপাইনবাবগঞ্জে তাদের আস্তানা পাওয়া যায়। সেগুলো ধ্বংস হওয়ার পর তারা নতুন করে আবারও সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা চালায়। নব্য জেএমবি’র একজন আমির আছে। সেই আমিরের তথ্য আমাদের কাছে রয়েছে।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী ও নারায়ণগঞ্জ থেকে নব্য জেএমবি’র দুই সদস্যকে গ্রেফতারের পর মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ডিএমপি’র মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিটিটিসি প্রধান এসব কথা বলেন। সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) যাত্রাবাড়ী ও নারায়ণগঞ্জের জঙ্গি আস্তানা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মনিরুল ইসলাম বলেন, রাজধানীর গুলিস্তানসহ পুলিশের ওপর ৫টি বোমা হামলার সঙ্গে নব্য জেএমবি’র পাঁচজনের এটি সেল জড়িত ছিলো। তাদের পরিকল্পনায় হামলা হয়েছে। এদের বাইরে এই দু’জনের ভূমিকা আছে। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি অভিযান পরিচালিত হয়েছে। সেখান থেকে তিনজনকে আটক করা হয়। তিনজনের মধ্যে দু’জনকে আমরা গ্রেফতার করেছি। তারা হলেন-ফরিদ উদ্দিন রুমী ও মিশুক খান ওরফে মিজান।

চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল পুলিশের ওপর আইইডি (ইমপ্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) হামলা হয়েছিলো। ওই হামলায় আমাদের তিনজন পুলিশ সদস্য আহত হন। সেই ঘটনার সঙ্গে তারা জড়িত। পাশাপাশি গত সোমবার যে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক পাওয়া গেছে-এ ঘটনায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান তিনি। ধৃতদের পরিচয় উল্লেখ করে মনিরুল ইসলাম বলেন, ফরিদ উদ্দিন রুমী একজন ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার এবং তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। মিশুক খান ওরফে মিজান মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা বেশকিছু তথ্য দিয়েছেন। তাদের আস্তানা থেকে একে-৭৪ খেলনা রাইফেল, খেলনা পিস্তল, ইলেক্ট্রিক্যাল ডিভাইস, তিনটি আইইডি উদ্ধার করা হয়েছে। তারা এ তিনটি আইইডি পুলিশের ওপর হামলার জন্য তৈরি করেছিলো। প্রতি মাসের শেষের দিকে পুলিশের ওপর হামলা করা হয়। এবারও তারা সেই পরিকল্পনা ছিলো।

নব্য জেএমবি’র টার্গেট কেনো পুলিশ? জানতে চাইলে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম প্রধান বলেন, নব্য জেএমবি’র সদস্যরা দেশের প্রচলিত আইন-কানুন, সংবিধানে বিশ্বাস করে না। এ কারণে আইন প্রয়োগকারী পুলিশকে তারা শত্রু মনে করে। এর বাইরে পুলিশের অভিযানের কারণে তাদের অনেক শীর্ষ নেতা মারা গেছে অথবা গ্রেফতার হয়েছে। পুলিশের ওপর হামলা হলে পুলিশের মনোবল ভাঙবে, সাধারণ মানুষের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি হবে।

মনিরুল ইসলাম বলেন, সারা মাসেই তারা টার্গেট খোঁজে। কোন জায়গাটা অপেক্ষাকৃত নিরাপদ। পুলিশ বক্সে পুলিশ সদস্যরা কখন যায়। নিরস্ত্র পুলিশ কখন কোথায় থাকে? আলো-আঁধার কখন থাকে, সেসব খেয়াল করে হামলার পরিকল্পনা করে। এর আগে প্রত্যেকটি হামলায় তারা জনবহুল এলাকা বেছে নিয়েছিলো। এ মাসেও তারা হামলার জন্য নিরাপদ জায়গা রেকি করেছিলো। কোথায় কী ধরণের বোমা পুঁতে রাখা যায়।

দেশের জঙ্গি সংগঠনগুলোর সঙ্গে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস’র কোনো সম্পর্ক রয়েছে কি-না? জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনগুলোর আদর্শ ভিন্ন ভিন্ন জঙ্গি সংগঠন শেয়ার করে। হলি আর্টিসান হামলার সময় তারা আইএস’র দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেছিলো। এবারও তারা চেষ্টা চালিয়েছিলো।তিনি আরও বলেন, সম্ভবত অর্থ সহায়তা পাওয়ার জন্য এবং তাদের যে হামলা করার ক্যাপাসিটি আছে সেটা প্রমাণের জন্য তারা আইএস’র দৃষ্টি আকর্ষণের অপচেষ্টা করে। তাদের একজন আমির রয়েছে। আমরা তার বিষয়ে তথ্য পেয়েছি। জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে আমিরের কাছে তথ্য দেয়। সেই আমির এগুলো প্রচার করে।

মনিরুল ইসলাম বলেন, সাইট ইন্টেলিজেন্স কারও বক্তব্য যাচাই করে না। তাদের সে ধরণের মেকানিজম নেই। সাইট ইন্টেলিজেন্সের দায় স্বীকারের বিষয়ে আমরা কথা বলেছি। পুলিশের ওপর হামলার বিষয়ে আইএস যে দাবি করেছে, সেটা সঠিক নয়। আমরা মনে করি, এগুলো বাংলাদেশ থেকেই করা হয়েছে।

নেপালিদের ক্যাসিনোতে অংশ নেওয়ার বিষয়ে মনিরুল ইসলাম বলেন, ২০১৬ সালে ফেব্রুয়ারিতে সিটিটিসি গঠিত হয়। আমরা টেরোরিজম নিয়ে কাজ করি। গুরুত্ব দিয়ে কাজ করি। নেপালিরা সরাসরি কোনো টেরোরিজমের যুক্ত না হলে আমরা সেটি নিয়ে কাজ করি না।

 

Developed by :