Sunday, 8 December, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




কুলাউড়ায় ধুম্রজাল সৃষ্টি হওয়া সেই তাসলিমার লাশ ওঠছে আজ

কুলাউড়া: প্রেমিকের সাথে দেখা করার পর স্থানীয়রা বাড়ি পৌঁছে দেয়ার পর হঠাৎ অসুস্থ, অতঃপর স্ট্রোক করে মৃত্যু হয় ১৭ বছরের কিশোরীর। নাম কুলসুমা বেগম তাসলিমা। সে কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী। জন্ম নিবন্ধন অনুসারে তার জন্ম তারিখ ২০০২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি।

তার মৃত্যুর পর দ্রুততার সহিত দাফন কাফন সম্পন্ন করে তার পরিবার। এতে সন্দেহ দেখা দেয় স্থানীয়দের মাঝে। ধুম্রজাল সৃষ্টি হয় মানুষের মনে। লোকমুখে নানা জল্পনা কল্পনার সূত্রপাত হয়। স্থানীয়দের কেউ কেউ জানিয়েছেন মৃতদেহের শরীরের গলায় এবং গালে আঘাতের চিহ্ন ছিলো। তাঁদের ধারণা তাসলিমাকে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নের মহলাল (রফিনগর) গ্রামে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি তুলে ধরা হলে প্রশাসন নড়েচড়ে বসে। শুরু হয় পুলিশী তদন্ত। প্রাথমিক তদন্ত শেষে দাফনের ৮ দিন পর গত ১২ জুলাই মৌলভীবাজার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ তোলার ব্যাপারে লিখিত আবেদন করেছে কুলাউড়া থানার পুলিশ।

এরই ধারাবাহিকতায় আদালতের নির্দেশে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে লাশটি আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বেলা ১২টার দিকে লাশটি তোলা হচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে। লাশ তোলার সত্যতা নিশ্চিত করেন কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়ারদৌস হাসান।

প্রসঙ্গত, উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নের মহলাল (রফিনগর) গ্রামের বাসিন্দা জহুর উদ্দিনের মেয়ে কুলসুমার সাথে একই এলাকার রেলস্টেশনের পাশের কালামিয়ার বাজারের বাসিন্দা আব্দুল আজিজের সম্পর্ক ছিলো। আজিজ আগে হিন্দু ধর্মের অনুসারী থাকলেও সম্প্রতি কুলসুমাকে বিয়ের জন্য ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হয়। গত ৪ জুলাই সকালে কুলসুমা আজিজের সাথে দেখা করতে তাঁর বাড়িতে যায়। তবে একপর্যায়ে স্থানীয় লোকজন সেখানে উপস্থিত হয়ে কুলসুমাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। পরদিন ৫ জুলাই বিকেলে স্বজনেরা অসুস্থ অবস্থায় কুলসুমাকে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান। ওইদিন রাতেই তার লাশ নিয়ে বাড়িতে ফেরেন। ৬ জুলাই সকাল ১১টার দিকে তার লাশ দাফন করা হয়। স্ট্রোক করে তাসলিমার মৃত্যু হয়েছে বলে স্থানীয়দের জানায় তার পরিবার। এদিকে পুলিশ ওই সময় প্রাথমিক তদন্তের সময় কুলসুমার অসুস্থতার বিষয়ে চিকিৎসা সংক্রান্ত কাগজপত্র দেখতে চাইলে স্বজনেরা তা দেখাতে পারেননি।

 

Developed by :