Monday, 23 September, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




প্রধানমন্ত্রী-ড. কামাল যোগাযোগ বেড়েছে

প্রধানমন্ত্রীর কয়েকজন বিশ্বস্ত নেতা এবং কর্মকর্তার মাধ্যমে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ, এক সময়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ছিলেন এরকম একজন এম, পি দুই দিন আগে ড. কামাল হোসেনের সংগে তার বেইলী রোডের বাসায় সাক্ষাৎ করেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। আওয়ামী লীগ সভাপতির পক্ষ থেকে কিছু ব্যক্তিগত উপহার ঐ এমপি ড. কামাল হোসেনকে পৌছে দেন।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর একজন ব্যক্তিগত স্টাফ মাঝে মধ্যেই ড. কামাল হোসেনের স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। নির্বাচনের পর ড. কামাল হোসেন তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সিঙ্গাপুর গিয়েছিলেন। সেখান সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ডা: মোস্তাফিজুর রহমান তাকে প্রটোকল দেন।

গতকাল ১ এপ্রিল ড. কামাল হোসেনের সংগে টেলিফোনে যোগাযোগ করেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতির শিক্ষক। ব্যক্তিগত ভাবে প্রধানমন্ত্রীর সংগে অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সখ্যতার কথা কারো অজানা নয়। অধ্যাপক আনিস জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে একটি লেখা দেয়ার জন্য ড. কামাল হোসেনকে অনুরোধ করেন। সূত্র মতে, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ড. কামাল হোসেনকে বলেন যে, প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধেই ফোনটি তিনি করেছেন।

ড. কামাল হোসেন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি স্মৃতিচারণ মূলক লেখা লিখবেন বলে কথা দেন। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের আগে থেকেই ড. কামাল হোসেনের সংগে আওয়ামী লীগ সভাপতির সম্পর্কের বরফ গলার খবর পাওয়া যায়। ড. কামাল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর সংগে সংলাপ চেয়ে চিঠি দিলে, প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষনিক ভাবে সংলাপে রাজী হন। আবদুস সোবহান গোলাপকে পাঠিয়ে জানতে চান যে, চাচা কি খাবেন? এরপর দুদফা সংলাপ হয়। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের পর প্রকাশ্যে রাজনৈতিক সমালোচনা থাকলেও, কেউ কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমন করছেন না। বরং ঘরোয় আলোচনায় দুজন দুজনার প্রশংসা করছেন। গতকাল আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতার সংগে আলোচনায়, প্রধানমন্ত্রী ড. কামাল হোসেনের সম্প্রতিক ভূমিকার প্রশংসা করেন।

৩১ মার্চ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভায় জোর করেও কেউ ড. কামাল হোসেনের মুখ থেকে জিয়ার নাম উচ্চারণ করাতে পারেন নি। বরং তিনি হলভর্ত্তি বিএনপি কর্মীদের সামনে বলেন ‘বঙ্গবন্ধুর সংগে কাউকে তুলনা করা যাবে না।’ অন্যদিকে, ঐ দিন রাতেই গণফোরামের কয়েকজন নেতার সংগে আলোচনার সময় ড. কামাল হোসেনও প্রধানমন্ত্রীর কিছু কাজের ভূয়শী প্রশংসা করেন। ড. কামাল বলেন ‘তিনি তো চেষ্টা করছেন।’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের কাছেও প্রধানমন্ত্রীর সংগে ড. কামালের যোগাযোগের খবর পৌছেছে। একারণেই ঐক্যফ্রন্টের নেতারা বিশেষ করে বিএনপির নেতারা ড. কামল হোসেনের ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন। ড. কামাল হোসেন বিএনপি মহাসচিবকে সংসদে যাবার তাগিদ দিচ্ছেন বলেও জানা গেছে। যদিও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরই বিএনপিতে একমাত্র যিনি ড. কামাল হোসেনের প্রতি আস্থাশীল। বাকী সব নেতারা এখন প্রকাশ্যেই ড. কামালকে সরকারের এজেন্ট বলছেন। যদিও ড. কামাল হোসেনের ঘনিষ্ঠরা এটাকে অস্বীকার করছেন। তাদের মতে, বঙ্গবন্ধুর ব্যাপারে ড. কামাল হোসেন কখনও আপোষ করেনি।

তথ্য সূত্র – বাংলা ইনসাইডার

 





Developed by :