Thursday, 22 August, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




বনানীর আগুনে নিহত বেড়ে ২০, আশঙ্কা বহু

বনানীতে বহুতল ভবন এফআর টাওয়ারের আগুনে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে দাঁড়িয়েছে। বৃস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত ২০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। আহত হয়েছেন ৭০জন।

২০ জনের মধ্যে ১৩ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক (ডিডি) দিলীপ কুমার ঘোষ। প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।এছাড়া ডিএমপির পক্ষ থেকে আরো ৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে।

আগুনের ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি করেছে ফায়ার সার্ভিস।

এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে একজন উদ্ধারকর্মী বলেন, ১০তলা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে থাকলেও এর উপরে আগুনের তাপ এবং ধোয়া থাকায় উপরে ওঠা যাচ্ছে না। দমকলকর্মীরা সেখানে পানি দিচ্ছেন।

১০ তলার উপরে থাকা মানুষদের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। জীবিত উদ্ধারের অশায় অভিযান চালাচ্ছেন উদ্ধারকারীরা।

এদিকে বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডে ভেতরে আটকা পড়েছেন বহু মানুষ। ভয়াবহ আগুন ও ধোঁয়ায় ভবনের ভেতরে আটকে পড়া মানুষেররা বাঁচার আকুতি জানিয়েছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শতাধিক জনকে জীবিত উদ্ধারের কথা জানিয়েছেন দমকলকর্মীরা। ২০জনের নিহতের খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।  বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটে এ আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিস বলছে ভবনের ৯তলা থেকে আগুনের সূত্রপাত।

১০তলার একটি অফিস থেকে বেঁচে ফেরা একজন চারজনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন। তার মধ্যে একজন বিদেশী নাগরিক আছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট কাজ করে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে বিল্ডিংয়ের ওপর থেকে হেলিকপ্টারে উদ্ধার করা হয়েছে একজনকে। এছাড়াও ল্যাডার ইউনিট (বহুতল ভবন থেকে উদ্ধারকারী সিঁড়ি) ও মোটরসাইকেল ইউনিটও উদ্ধারকাজে অংশগ্রহণ করে।

কাঁচে ঘেরা পুরো ভবনটির বাইরে থেকে কাঁচ ভেঙে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ভেতরকার ধোয়া বের করছেন এবং ল্যাডার দিয়ে আটকে পড়া মানুষদের উদ্ধার করে নিচে নামিয়ে এনেছেন।

ভবনের নিচে রাখা হয়েছে বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স। আহতের দ্রুত চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে সেখানে। আহতদের অনেককেই কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এছাড়া চিকিৎসার জন্য সব হাসপাতালে জরুরি সেবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

Developed by :