Monday, 26 September, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




এটি আরেক সংসদ নির্বাচন

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম।।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নির্বাচন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের অনুরূপ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 



তিনি বলেন, ডাকসু নির্বাচন নিয়ে সবার মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছিল। রাজনীতিতে নতুন একটি সম্ভাবনা তৈরি হয়। তবে এ নির্বাচন জাতীয় নির্বাচনের মতোই হয়েছে। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হলো দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ঢাবি শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি ঐক্যফ্রন্টের সমর্থন রয়েছে।

 



কিছুদিনের মধ্যেই বিভাগীয় শহরে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে জনসভা করা হবে বলেও জানান তিনি।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের আইনি চেম্বারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এ কথা বলেন।

 



মির্জা ফখরুল বলেন, সুলতান মনসুরের শপথ নেওয়া বেআইনি, তাই তার সংসদ সদস্য পদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ঐক্যফ্রন্ট ও গণফোরামের দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে সুলতান মনসুর শপথ নিয়ে তথাকথিত সংসদে বসেছেন। তিনি জাতির সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।

 



তার তথাকথিত সংসদে যাওয়ার ঘটনায় ঐক্যফ্রন্ট নিন্দা জানায়। তার বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি যেহেতু দল থেকে বহিষ্কৃৃত তাই সংসদ সদস্য হতে পারেন না।

 



বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবি করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া অসুস্থ। আগে তাকে বিএসএমএমইউতে এনে চিকিৎসা শেষ না করেই কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। তিনি আবার অসুস্থ হয়েছেন। তিনি (খালেদা জিয়া) ও আমরা মনে করি তাকে অবিলম্বে নিজ ইচ্ছামতো চিকিৎসা দেওয়া হোক।

 



আইনগতভাবে খালেদা জিয়া জামিন পাওয়ার যোগ্য। আমরা তার মুক্তি চাই।সরকারের সমালোচনা করে ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র অভিযোগ করে বলেন, দেশজুড়ে এখনো ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের গায়েবি মামলা দেওয়া হচ্ছে। আমরা অবিলম্বে সেগুলো প্রত্যাহার ও নেতাকর্মীদের হয়রানি না করার আহ্বান জানাচ্ছি।

 



সম্প্রতি সরকার গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। এতে সাধারণ জনগণের ওপর চাপ বৃদ্ধি পাবে। আমরা গ্যাসসহ অন্যান্য ইউটিলিটি সার্ভিসের দাম না বাড়ানোর দাবি জানাই।

বৈঠক শেষে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন বলেন, কিছু লোক ব্যতীত ১৬ কোটি মানুষ ঐক্য চায়। তাই এটা ধরে রাখতে হবে। ঐক্যের পক্ষে সবাই একমত। ঐক্যের মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্রকে কার্যকর করতে হবে।

 



ঐক্যকে আরও সুদৃঢ় করে কার্যকর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হবে।

ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী,

 



নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

 






















 

Developed by :