Saturday, 1 October, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |




রাজাকারপুত্র বলায় সুব্রত’র বিরুদ্ধে মনিয়ার মামলা-আউয়ালের প্রস্তুতি

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম।।

জাতীয় দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় ‘সিলেটে ৫ রাজাকারপুত্রকে মনোনয়ন না দেয়ার অনুরোধ’ শিরোনামে শনিবার প্রকাশিত সংবাদে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া এবং উপদপ্তর সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়ালের নাম রয়েছে।

সিলেট জেলা মুক্তিযাদ্ধা কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তাদেরকে মনোনয়ন না দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ই-মেইলে অনুরোধ বার্তা পাঠিয়েছেন।



সূত্রমতে, গত বছর সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল সম্পাদিত ‘রণাঙ্গন’ ম্যাগাজিনে সিলেটের সকল রাজাকারের নাম প্রকাশিত হয়। এ ম্যাগাজিনে রাজাকার হিসেবে আব্দুল হাছিব মনিয়া ও দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়ালের পিতার নাম রয়েছে।



এদিকে ‘রাজাকার’ আখ্যায়িত করায় সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে উকিল নোটিশ পাঠান বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া এবং দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল। কিন্তু সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল দু’জনের উকিল নোটিশ গ্রহণ করেননি।



এরপর সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের বিরুদ্ধে আদালতে মানহানী মামলা করেন হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া। যা এখনো বিচারাধীন রয়েছে।



এদিকে দৈনিক যুগান্তরের শেষ পাতায় ‘সিলেটে ৫ রাজাকারপুত্রকে মনোনয়ন না দেয়ার অনুরোধ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি আব্দুল হাছিব মনিয়া।



বিবৃতিতে তিনি জানান, প্রকাশিত সংবাদে তাকে জড়ানো মনগড়া ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তাছাড়া এ সংবাদে তার বক্তব্য নেয়া হয়নি এবং তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগকারী সুব্রত চক্তবর্তী জুয়েলের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে আদালতে তিনি মামলা করেছেন (মামলা নং ৪০/১৫/০৫/১৭)।



বিবৃতিতে তিনি আরও জানান, তিনি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। এ নিয়ে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

এসময় তিনি, তাকে জড়িয়ে মিথ্যা বানোয়াট ও মনগড়া সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।”



অপরদিকে দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল বলেছেন, ‘আমার পিতা রাজাকার ছিলেন না। ‘রণাঙ্গন’ ম্যাগাজিনে ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ হয়ে নাম দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা লিখিতভাবে এর প্রতিবাদও করেছেন।’



তিনি বলেন, ‘১৮ মার্চ উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে চেয়ারম্যান পদে আমার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা জুয়েলের বিরুদ্ধে উকিল নোটিশ পাঠানোয় ক্ষুব্ধ হয়ে আমাকে মনোনয়নবঞ্চিত করার হীন উদ্দেশ্য এবং রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে সম্মানহানী ঘটাতে তিনি পরিকল্পিতভাবে প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি পাঠিয়েছেন। যা রাজনৈতিকভাবে সচেতন যেকোন ব্যক্তি সহজেই বুঝতে সক্ষম হবেন বলে আমার বিশ্বাস রয়েছে।’



আওয়ামী লীগ নেতা আউয়াল আরো বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের তনয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আমার দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে; তিনি আমার বিরুদ্ধ সমূহ প্রপাগান্ডা বিশ্বাস না করে যোগ্যতা ও ন্যায্যতার ভিত্তিতে বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী নির্ধারণ করবেন। যাতে করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করা সম্ভব হয়।’



দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিয়ানীবাজারবাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহŸান জানিয়ে বলেছেন, ‘অচিরেই তিনি ন্যায়ের স্বপক্ষে সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করবেন।’


















 

Developed by :