Thursday, 20 June, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের বর্ধিত সভা পণ্ড, কালা-জাহাঙ্গীর বহিস্কার

বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম।।

জেলা নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতেই হট্টগোল ও উত্তেজনাকর পরিস্থিতির কারণে পণ্ড হয়ে গেছে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা। আসন্ন পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ হল রুমে এ সভা আয়োজন করা হয়েছিল।


এ ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আপ্তাব আলী কালা মিয়া ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। একই সাথে তাদের কেন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবেনা, এ ব্যাপারে কারণ দর্শানোর নোটিশও প্রদান করবে বলে জানানো হয়েছে।


দলীয় সূত্র জানায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলী আমজদের সভাপতিত্বে মঙ্গলবার বেলা ২টায় সভা শুরু হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, জেলা আওমীলীগ নেতা মুহাম্মদ আলি দুলাল, এডভোকেট মাহফুজুর রহমান, জগলূ চৌধুরী, আজমল আলি, নুরুল আমিন, সাদ উদ্দিন।


তাদের উপস্থিতিতেই সভার শুরুতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) ও ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) পদে দলীয় প্রার্থী আহবান করা হয়।


এতে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন প্রার্থীর নাম, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১ জনের নাম জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের কাছে প্রস্তাব করা হয়।


এসময় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক নাসরিন জাহান ফাতেমাকে মনোনয়নের জন্য সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আর চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের জন্য বর্ধিত সভায় উপস্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সকল সদস্য ও ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের কোন প্রক্রিয়ায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে সে ব্যাপারে জেলা নেতৃবৃন্দ দলীয় নেতা কর্মীর মতামত চান।


উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রের নির্দেশনার আলোকে প্রকাশ্যে মতামতের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাইয়ের আহবান জানান।

কিন্তু চেয়ারম্যান প্রার্থী শামিম আহমদ প্রকাশ্যে মতামতের পরিবর্তে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাইয়ের দাবী করেন। অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আপ্তাব আলি কালা মিয়া ও জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ্যে মতামতের ভিত্তিতে প্রার্থী বাছাইয়ের মতামত ব্যক্ত করেন।


এসময় জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ গোপন ব্যালটে ভোট নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলে দুপক্ষে উত্তেজনা ও হট্টগোল শুরু হয়। এসময় আপ্তাব আলি কালা মিয়া ও জাহাঙ্গীর আলমের অনুসারী নেতাকর্মীরা চেয়ার ভাংচুর করে শামিম আহমদের উপর চড়াও হলে জেলা নেতৃবৃন্দ ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়।


এসময় উত্তেজিত নেতাকর্মীরা শামিম আহমদের উপর ফের চড়াও হলে পুলিশ বেষ্টনীতে জেলা নেতৃবৃন্দ শামিমকে নিয়ে সভাস্থল ত্যাগ করেন।

এদিকে ‘দলীয় শৃঙখলা ভঙ্গ, দাঙ্গা-হাঙ্গামা ও সভা পন্ড’ করার দায়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আপ্তাব আলী কালা মিয়া ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বহিস্কার করে রাতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জেলা আওয়ামী লীগ।


জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত এ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘কেন্দ্র্রীয় আ.লীগের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য ২৯ জানুয়ারি মঙ্গলবার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় অভিযুক্ত দ্বারা এ অপরাধ সংঘঠিত হলে এ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।


বাংলাদেশ আ.লীগের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে এবং দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য তাদের বিরুদ্ধে এ সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।’


এ সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবরে প্রেরণ করা হয়। এছাড়া কেন্দ্রের পরামর্শ ও নিদের্শনা অনুযায়ী পরবর্তীতে কেন তাদেরকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হবে না- সেজন্য অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হবেও বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।






 

Developed by :