Wednesday, 20 November, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




মন্ত্রিসভা সাজানো আ’লীগের একটি পজেটিভ কৌশল : নাইমুল ইসলাম খান

নতুন মন্ত্রিসভায় অসাধারণ সম্ভাবনাময় অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য দেখতে পাচ্ছি। মন্ত্রিসভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোনো আত্মীয়-স্বজন নেই। বিগত ১০ বছর মন্ত্রী ছিলেন এমন কাউকে মন্ত্রী করা হয়নি। এই মন্ত্রিসভায় হাসানুল হক ইনুসহ অনেক সিনিয়র রাজনীতিবিদরা নেই। কাজেই এদের মধ্যে যারা নন আওয়ামী লীগার, তাদের একটি সম্ভাবনা আছে আওয়ামী লীগের সঙ্গে একটি বিরোধী দলের মতো ভূমিকা রাখার।

আমাদের নতুন সময়ের সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান বলেছেন, নতুন মন্ত্রিসভায় অসাধারণ সম্ভাবনাময় অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য দেখতে পাচ্ছি। মন্ত্রিসভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোনো আত্মীয়-স্বজন নেই।

বিগত ১০ বছর মন্ত্রী ছিলেন এমন কাউকে মন্ত্রী করা হয়নি। এই মন্ত্রিসভায় হাসানুল হক ইনুসহ অনেক সিনিয়র রাজনীতিবিদরা নেই। কাজেই এদের মধ্যে যারা নন আওয়ামী লীগার, তাদের একটি সম্ভাবনা আছে আওয়ামী লীগের সঙ্গে একটি বিরোধী দলের মতো ভূমিকা রাখার।

গতকাল ভয়েস অফ আমেরিকার এক প্রতিবেদনে তিনি আরো বলেছেন, পার্লামেন্টে নির্বাচন নিয়ে যে সমালোচনা আছে, তা পার্লামেন্টের পারর্ফমেন্সের কারণে এই সমালোচনা কমে প্রশংসায় চলে আসতে পারে। আওয়ামী লীগের এবং অন্যান্য সিনিয়রা যারা মন্ত্রী ছিলেন, এখন মন্ত্রী নেই, তারা পার্লামেন্টের স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য হবেন। আর এই সভাপতিকে মন্ত্রীর পূর্ণ মর্যাদা দেয়া হবে।

মন্ত্রীদের আন্ডারে যখন পার্লামেন্টের স্ট্যান্ডিং কমিটির ফাংশন করবে তখন এখনকার মন্ত্রীরা দায়ী হবে আরো বেশি। তখন তাদের কাছে এটা আরো বেশি মর্যাদাপূর্ণ হবে। তখন পার্লামেন্টের স্ট্যান্ডিং কমিটি আরো বেশি প্রভাবিত হবে।

নাইমুল ইসলাম খান বলেছেন, বিরোধী দলের ভূমিকায় যদি জাতীয় পার্টি এবং ঐক্যফ্রন্টের ৭ জন, আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, স্বতন্ত্রের ৩ জনসহ অনেকেই মিলে যদি একটি বিরোধী গ্রুপ হন, তাহলে প্রায় ৪৯ জন সদস্য হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তারা সংসদে অসাধারণ একটি বিট করতে পারবেন। তারা ট্র্যাডিশনাল বিরোধী দলের মতো না হলেও সমালোচনামূলক একটি ভূমিকা রাখতে পারবেন।

আমাদের নতুন সময়ের সম্পাদক আরো বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পুরোনো মন্ত্রীদের আমন্ত্রণ না জানালেও তাদের বাদ দেয়া হয়নি। জাতীয় পার্টিকেও দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে, তারাও ক্ষমতার দাবিদার। তাদের বলা হয়েছে, আপনারা বিরোধী দলের ভূমিকা রাখেন এবং পজেটিভ ভূমিকা রাখেন। যাতে করে পার্লামেন্ট প্রভাবিত হয়। পার্লামেন্ট যেনো একচেটিয়া না হয়। এটি আওয়ামী লীগের একটি পজেটিভ কৌশল।

 

Developed by :