Friday, 20 September, 2019 খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |




দু’নেতার ছবি ও কিছু কথা # ছাদেক আহমদ আজাদ

sorwar-canada-2

ছাদেক আহমদ আজাদ

কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. সরওয়ার হোসেন। তিনি আওয়ামী লীগের নিবেদিত কর্মী ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের একান্ত প্রিয় কিংবা বিশ্বস্তজন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাষ্ট্রীয় বিশেষ বিশেষ অনুষ্ঠানে তাঁকে সফরসঙ্গী হতে দেখা যায়। বিগত ওয়ান ইলেভেনের ফখরুদ্দীন-মঈন শাসনের সময় তিনি কারাবরণ করেন।

রাজনীতির অন্দরমহলের বিশেষ এই ব্যক্তির (সরওয়ার) বাড়ি বিয়ানীবাজার উপজেলার মোল্লাপুর ইউনিয়নের মোল্লাগ্রামে। তবে প্রবাস জীবনের পাশাপাশি দীর্ঘদিন থেকে তিনি সিলেট শহরে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন।

মধ্যখানে বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলায় রাজনীতিতে সক্রিয় হতে বেশ দৌঁড়ঝাপ দেন। এ সময় সিলেট-৬ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়ে স্থানে স্থানে পোস্টার, লিফলেট সাঁটানোর পাশাপাশি সিলেট-বিয়ানীবাজার-বাইরগ্রাম আঞ্চলিক মহাসড়ক ও বিয়ানীবাজার-চন্দরপুর-গোলাপগঞ্জ সড়কে অনেকগুলো সুউচ্চ দৃষ্টিনন্দন তোরণ চোখে পড়ে। তবে এসব তোরণ কিংবা ব্যানারের নীচে প্রচারে বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ লেখা হয়েছিল!

সর্বশেষ গোলাপগঞ্জ এমসি একাডেমি মাঠে প্রধানমন্ত্রীর বিশাল জনসভা সফল করতে তিনি তোরণ নির্মাণ করেন। জনসভার দিন মঞ্চে উঠার সময় একমাত্র ব্যক্তি সরওয়ার হোসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পা ছুঁয়ে সালাম করেন । কিন্তু রহস্যজনক কারণে বিশাল এ জনসভায় তিনি বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ পাননি।

মূলতঃ এরপর থেকেই সরওয়ার হোসেন প্রকাশ্যে সিলেট-৬ আসনের রাজনীতিকে গুডবাই জানান। তবে আলোচনার টেবিল বলছে, সরওয়ার হোসেন এখন কৌশলী রাজনীতিক। তিনি অন্ধকারে কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুলার রাজনীতি চালিয়ে যাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী পরিবারের সজ্জ্বন ব্যক্তি হওয়ায় অনেকের কাছে মো. সরওয়ার হোসেনের কদর দিনদিন বাড়ছে। বিশেষ করে সরকারি প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারিদের কাছে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে সমাদৃত।

মাঝেমধ্যে দলের অনুগত নেতাকর্মী যেকোনোভাবে আক্রান্ত হলে সরওয়ার হোসেন প্রশাসনিক শেল্টার দিয়ে সাধ্যমত চেষ্টা করেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে। তবে সদাহাস্যোজ্জ্বল সুটোম দেহের অধিকারি সরওয়ার হোসেনকে বেশ কিছুদিন থেকে বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জে রাজনীতিতে নয়-ই, সামাজিক আচার-অনুষ্ঠানেও দেখা যাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন সরওয়ার হোসেন

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন সরওয়ার হোসেন

ভদ্র স্বভাবের খেলা হলো রাজনীতি। এজন্য বলা হয়, রাজনীতিতে শেষ বলতে কিছু নেই।

এতোদিন মানুষ ধারণা করতো, নুরুল ইসলাম নাহিদের সাথে সরওয়ার হোসেনের রাজনৈতিক দূরত্ব রয়েছে। হ্যাঁ, দূরত্ব আছে কি নাই, তা এ মুহূর্তে বলা দোষনীয়। শুধু বলবো- শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সোমবার রাতে তাঁর সরকারি বাসভবনে গিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে ভুল করেননি সাবেক ছাত্রনেতা সরওয়ার হোসেন।

তাঁর এই ফুলেল শুভেচ্ছালগ্নের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ছবিটি ইদানিংকালের সবজান্তা, সবপাওয়ার নেশায় মত্ত নেতাদের কাছে অধিক গুরুত্ববহ ও চিরঞ্জীব হওয়াটা বাঞ্ছনীয়। আমার মনে হয়- যদি সুস্থ মস্তিস্কের কোনো রাজনৈতিক নেতা কিংবা কর্মী এই ছবিটির তাত্ত্বিক গুরুত্ব বিশ্লেষণ করে তাহলে সহমত না হলেও নেতাকে অসম্মান করার চিন্তা একেবারে মাথা থেকে ঝেঁড়ে ফেলবে; এবং অশুভ চিন্তা দূর করাই উত্তম।

নেতায় নেতায় অন্তরঙ্গ, কর্মী কেনো বিবাদে জড়াবে? জয় হোক আগামী দিনের বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলার আওয়ামী পরিবারের সকল প্রতিশ্রুতি ও সৃষ্টিশীল চিন্তার রাজনৈতিক নেতাকর্মীর। জয় হোক নুরুল ইসলাম নাহিদের। জয়তু সরওয়ার হোসেন।

লেখক: প্রধান সম্পাদক, বিয়ানীবাজারবার্তা২৪.কম।

 

Developed by :