Tuesday, 29 November, 2022 খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

বিয়ানীবাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ব্যাংকের কাছে গুরুত্বহীন

বিয়ানীবাজার: বিয়ানীবাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ব্যাংকগুলোর কাছে গুরুত্বহীন। তারা চাইলেই প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় অসতে পারছেনা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে বড় ব্যবসায়ীরা ১০০ টাকা থেকে গড়ে ৬৮ টাকা পেয়েছেন। অথচ ছোট ব্যবসায়ীদের দেওয়া হয়েছে মাত্র ১৬ টাকা। শুধু তাই নয়, প্রণোদনা প্যাকেজ হতে যেখানে এক হাজার ৭৮৬ জন বড় ব্যবসায়ীকে দেওয়া হয়েছে ২৩ হাজার ১৭৯ কোটি টাকা, সেখানে ৯ হাজার ৫০ জন এসএমই খাতের উদ্যোক্তাকে দেওয়া হয়েছে মাত্র ৩ হাজার ৫২২ কোটি টাকা। এই পরিস্থিতিকে অনেকে বলছেন, আসলে তেলে মাথায় তেল দিচ্ছে ব্যাংকগুলো।

বিভিন্ন সূত্র জানায়, বিয়ানীবাজারের ব্যবসায়ীরা কেউ এখনো পর্যন্ত অর্ধকোটি টাকার বেশী ঋণ পাননি। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও ঋণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অনেক ব্যবসায়ী অভিযোগ করেছেন, ব্যাংকের কাছে ধর্না দিয়েও ঋণ পাচ্ছেননা তারা।

প্রণোদনা প্যাকেজের দু’টি বড় খাত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ব্যাংক খাতের প্যাকেজ থেকে বড় ব্যবসায়ীরা ঋণ নিতে পারলেও ক্ষুদ্র, মাঝারি ও ছোট উদ্যোক্তারা নিতে পারছেন খুবই সামান্য।

ব্যাংক কর্মকর্তারাও বলছেন, বড় শিল্প উদ্যোক্তাদের ঋণ দেওয়া নিয়ে তাদেরকে বেশি ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধার করতে সরকার ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টর এবং ক্ষতিগ্রস্ত এসএমই খাতে প্রণোদনা হিসেবে বরাদ্দ রেখেছে ৫৩ হাজার কোটি টাকা। এই প্রণোদনায় সবচেয়ে বড় প্যাকেজটি হচ্ছে —করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য স্বল্প সুদে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল হিসেবে ঋণ সুবিধা প্রদান। এই প্যাকেজ বাস্তবায়নে অর্থ দেওয়া হয়েছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এই প্যাকেজের আওতায় বড় বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে চলতি মূলধন হিসেবে ঋণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র (কুটির শিল্পসহ) ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য স্বল্প সুদে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল ঋণ সুবিধা দেওয়ার জন্য প্রণোদনা প্যাকেজে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকা। এ খাত থেকে ২৫ আগস্ট পর্যন্ত ৯ হাজার ৫০ প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে আলোচ্য প্রণোদনা প্যাকেজ হতে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল হিসেবে ৩ হাজার ৫২২ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে। এই সময়ে প্যাকেজটির বাস্তবায়ন অগ্রগতি মাত্র ১৬ শতাংশ।

ব্যবসায়ী উদ্যোক্তারা বলছেন, উৎপাদন ও কর্মসংস্থান বাড়ানোর মাধ্যমে তারা অর্থনীতি চাঙা করার চেষ্টা করছে।

এদিকে ৫ হাজার কোটি টাকার কৃষি পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের আওতায় ৩১ জুলাই পর্যন্ত ১৭ হাজার ৮০১ জন কৃষক ও কৃষি ফার্মের অনুকূলে এই প্রণোদনা প্যাকেজ হতে মাত্র ৪৯৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা স্বল্প সুদে ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। যদিও সচল রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার জন্য প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় যে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, তার পুরোটাই গার্মেন্ট খাতের শ্রমিকদের এপ্রিল-মে-জুন মাসের বেতন বাবদ দেওয়া হয়েছে। এই ঋণের সুদহার মাত্র ২ শতাংশ।

একইভাবে নিম্ন আয়ের পেশাজীবী কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের আওতায় ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হলেও ১৯ আগস্ট পর্যন্ত ৩৬টি ক্ষুদ্র আর্থিক প্রতিষ্ঠানের (এমএফআই) মাধ্যমে প্রণোদনা প্যাকেজ হতে ৯ হাজার ৮৮২ জন কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে মাত্র ২৭৬ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

বিয়ানীবাজার উপজেলার সবক’টি ব্যাংক থেকে মোট ২০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে বলে জানা যায়।

Developed by :